করোনা চিকিৎসা নিয়ে যেন বাণিজ্য না হয়: মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=193453 LIMIT 1

ঢাকা, বুধবার   ১২ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২৯ ১৪২৭,   ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

করোনা চিকিৎসা নিয়ে যেন বাণিজ্য না হয়: মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব

খুলনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:১৩ ১১ জুলাই ২০২০   আপডেট: ২১:৩৪ ১১ জুলাই ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

করোনা চিকিৎসা নিয়ে খুলনাতে যেন বাণিজ্য না হয় সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে বলেছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) মো. কামাল হোসেন। তিনি করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির সভায় এ কথা বলেন।

খুলনার ডিসি মো. হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে তার সম্মেলন কক্ষে শনিবার দুপুরে এ সভা হয়।

সচিব আরো বলেন, খুলনার বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলো যেন কোভিড-১৯ চিকিৎসা নিয়ে প্রতারণার সুযোগ না পায়। বেসরকারি হাসপাতালগুলোর লাইসেন্স নবায়নসহ সরকারি নিয়ম নীতি অনুসরণ করছে কিনা তা নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করতে হবে। সব দফতরের সমন্বয়ে সম্মিলিতভাবে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ অব্যাহত রাখলে খুলনায় সংক্রমণের হার কমে আসবে।

সভায় আলোচনা শেষে আরো কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। 

সিদ্ধান্তগুলো হচ্ছে- জনসাধারণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করতে প্রচারের পাশাপাশি আইনের প্রয়োগ ঘটানো, সরকারি দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করোনাভাইরাস পরীক্ষা করাতে দফতর প্রধানের প্রত্যয়পত্র, ঈদ-উল-আজহায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মস্থল ত্যাগ না করা, আমদানি হলেই খুলনায় আরো একটি করোনাভাইরাস পরীক্ষার পিসিআর মেশিন এবং কোভিড হাসপাতালে হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা সরবরাহ করা। 

এছাড়া খুলনা স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালকের দফতর প্রয়োজন হলে বিভাগের অন্য জেলা-উপজেলা থেকে চিকিৎসক ও নার্সদের কোভিড হাসপাতালে পদায়নের ব্যবস্থা করা, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শারীরিকভাবে বেশি অসুস্থ রোগীদের দ্রুত করোনাভাইরাস পরীক্ষার রিপোর্ট দেয়া।

সভায় ডিসি জানান, করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরু থেকে এ পর্যন্ত শুধু স্বাস্থ্যবিধি মানতে এক হাজার ৫১২ জনকে ১৯ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

সিভিল সার্জন জানান, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের ১৭ ও ২৪ নম্বর ওয়ার্ড এবং রূপসার আইচগাতি ইউপিতে লকডাউনের ফলে গত দুই সপ্তাহে ওইসব এলাকায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ অনেকাংশে কমেছে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) হোসেন আলী খোন্দকার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সরদার রকিবুল ইসালম, এসপি এসএম শফিউল্লাহ, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মুন্সী মো. রেজা সেকেন্দার, খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ, খুলনা স্বাস্থ্য বিভাগের উপ-পরিচালক ডা. শামীম আরা নাজনীন, খুলনার সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ, খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসের উপ-প্রধান তথ্য অফিসার ম. জাভেদ ইকবাল, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান খান, এডিসি (রাজস্ব) জিয়াউর রহমান, এডিসি (সার্বিক) গোলাম মাঈনউদ্দিন হাসান, এডিএম মো. ইউসুপ আলী, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা এসএম আউয়াল হক, খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এসএম নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজাসহ অন্যান্য সরকারি দফতরের কর্মকর্তারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ