করোনায় কমছে মাদকের আগ্রাসন

ঢাকা, বুধবার   ২৭ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭,   ০৩ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

করোনায় কমছে মাদকের আগ্রাসন

সালাহ উদ্দিন চৌধুরী ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৩৮ ৩১ মার্চ ২০২০   আপডেট: ১৬:০১ ১ এপ্রিল ২০২০

সংগৃহীত

সংগৃহীত

রাজধানীতে হঠাৎ কমে গেছে মাদকসেবী ও বিক্রেতার সংখ্যা। এর পেছনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণকে কারণ হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। তাদের মতে র‌্যাব-পুলিশ-মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরসহ সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টার পরও আটকানো যায়নি মাদকের আগ্রাসন। কিন্তু করোনাভাইরাসের প্রভাবে নিমিষেই থমকে গেছে এই মরণঘাতী ব্যবসা।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ৫০টি থানা প্রতিদিন মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে বিপুল পরিমাণ মাদকসহ মাদকসেবী ও বিক্রেতাদের গ্রেফতার করা হয়। এর বাইরে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর ও র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর গত বুধবার থেকে ১০ দিনের ছুটি ঘোষাণা করে সরকার। সীমিত করা হয় জনসাধারণের চলাচল এবং যান চলাচল। দেশের অর্থনীতির বিভিন্ন ক্ষেত্রে এর প্রভাব পড়েছে। পাশাপাশি এর প্রভাব পড়েছে মাদক কারবারেও। গত কয়েকদিনে রাজধানীর ৫০টি থানায় গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সংশ্লিষ্ট মামলার পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে এ চিত্র দেখা গেছে।

যেখানে রাজধানীর ৫০টি থানায় গড়ে ২৪ ঘণ্টায় মাদক সেবন ও বিক্রির অপরাধে ৫০ জন গ্রেফতার হতো আর মামলা হতো গড়ে ৪০টি, সেখানে গত ৭২ ঘণ্টায় গ্রেফতারের সংখ্যা দাঁড়ায় গড়ে ৫ জন আর মামলা হয়েছে ৪টি।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে গত বুধবার থেকে সরকার সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা কার্যক্রম শুরুর ঘোষণা দেয়। ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছাড়া বন্ধ করে দেয়া হয় সরকারি-বেসরকারি অফিসসহ সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। সীমিত করে দেয়া হয় আন্তঃজেলা বাস চলাচল। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে ট্রেন ও লঞ্চ চলাচলও।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঢাকা মেট্রো উপ-অঞ্চল উত্তরের সহকারী পরিচালক খোরশেদ আলম জানান, দেশের বিভিন্ন জেলার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ থাকায় সীমান্তবর্তী এলাকাগুলো থেকে মাদকের কোনো চালান ঢাকায় আসতে পারছে না। আবার দীর্ঘ বন্ধের কারণে বিপুল সংখ্যক মানুষ ঢাকা ছেড়ে গেছেন। রাজধানীর নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও সতর্কাবস্থায় আছে। এসব কারণে কমে গেছে মাদকের আগ্রাসন।

এ বিষয়ে শাহআলী থানার ওসি সালাউদ্দিন মিয়া বলেন, শুধু মাদক নয়, অন্যান্য অপরাধও কমে গেছে উল্লেখযোগ্য হারে। কদমতলী থানার ওসি জামাল উদ্দিন মীর জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়মিত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি করোনাভাইরাসের বিষয়ে সরকারের নির্দেশনা পালন করছেন তারা।

হাজারীবাগ থানার ওসি ইকরাম আলী জানান, মানুষের জানমালের নিরাপত্তার জন্য টহল জোরদার করা হয়েছে। এসব কারণে মাদকসহ অন্য যে কোনো ধরনের অপরাধ কমে গেছে।

ডিএমপি মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানের ফলাফলে দেখা যায়, সর্বশেষ গত ২৮ মার্চ সকাল থেকে ২৯ মার্চ সকাল পর্যন্ত ডিএমপির ৫০টি থানা এলাকা খেকে মাদকসহ গ্রেফতার করা হয় তিনজনকে। উদ্ধার করা হয় ৩১০ পিস ইয়াবা। মামলা হয় মাত্র ২টি। এর আগে গত ২৭ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় মাদক সেবন ও বিক্রির অপরাধে গ্রেফতার করা হয় ৫ জনকে। উদ্ধার করা হয় ৬০ পিস ইয়াবা ও ৩০ গ্রাম হেরোইন। মামলা হয়েছে ৩টি।

এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ডিএমপির মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার হয় ৯ জন। উদ্ধারকৃত মাদকের মধ্যে ছিল ২৬৫ পিস ইয়াবা, ২ দশমিক ৫ গ্রাম হেরোইন ও ১১০টি ইনজেকশন। এসবের বিপরীতে মামলা হয় ৮টি।

গত ২৪-২৫ মার্চ মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার হয় ৩৮ জন, মামলা হয় ২৫টি। ২৩-২৪ মার্চ গ্রেফতার হয় ৩৯ জন, মামলা ২৮টি। ২০-২১ মার্চ গ্রেফতার ৪৬, এবং মামলা হয় ১৯টি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসসি/এস/এসএএম