করোনা চিকিৎসায় নিজস্ব ওষুধ ব্যবহার করছেন অ্যামাজনের অধিবাসীরা

ঢাকা, বুধবার   ২৭ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭,   ০৩ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

করোনা চিকিৎসায় নিজস্ব ওষুধ ব্যবহার করছেন অ্যামাজনের অধিবাসীরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৪৬ ২২ মে ২০২০   আপডেট: ১৫:৫১ ২২ মে ২০২০

গাছের বাকল সংগ্রহ করছেন অ্যামাজনের অধিবাসী

গাছের বাকল সংগ্রহ করছেন অ্যামাজনের অধিবাসী

অ্যামাজনের গহীন বনে পৌঁছে গেছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। আর এই প্রাণঘাতী ভাইরাস থেকে বাঁচতে নিজস্ব পদ্ধতিতে তৈরি ওষুধ ব্যবহার করছেন বলে জানিয়েছেন সেখানকার অধিবাসীরা।

ডেইলি মেইল'র একটি প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, অ্যামাজনের সাতেরে মাওয়ে উপজাতি সম্প্রদায়ের অধিবাসীরা জানান, গাছের ছাল ও মধু দিয়ে তৈরি বিশেষ এক ওষুধ দিয়ে করোনাভাইরাসের চিকিৎসা করাচ্ছেন তারা।

অ্যামাজনের একটি প্রত্যন্ত উপজাতি জানিয়েছে করোনা ভাইরাসের লক্ষণগুলো চিকিৎসা করার সময় গাছের ছাল এবং মধু থেকে তৈরি তাদের ঐতিহ্যবাহী প্রতিকারগুলো সহায়তা করছে।

উপজাতি নিরাময়কারী দল ওষধি গাছের সন্ধানে অ্যামাজন নদী ভ্রমণ করছেন

একদল উপজাতি নিরাময়কারী মাথায় বিশেষ পোষাক পরে ওষধি গাছের সন্ধানে অ্যামাজন নদী ভ্রমণ করছেন। তাদের বিশ্বাস সেগুলো করোনোভাইরাসের চিকিৎসা করতে পারে। তবে, কোভিড -১৯ এর লক্ষণগুলিকে প্রভাবিত করতে পারে এমন পরামর্শ দেয়ার জন্য তাদের কাছে কোন সুনির্দিষ্ট প্রমাণ নেই যার জন্য বিশ্বজুড়ে বিজ্ঞানীরা একটি ভ্যাকসিন খুঁজতে কাজ করছেন।

সাতারে মাওয়ে উপজাতির এক পুরুষ বলেছেন যে তারা এই অঞ্চলের হাসপাতালের সাহায্য ছাড়াই মহামারীটি মোকাবেলায় লড়াই করছেন। মনাউসের নিকটবর্তী একটি গ্রাম থেকে উপজাতীয় নেতা আন্দ্রে স্যাতারে মাওয়ে বলেন, আমরা লক্ষণগুলোর বিরুদ্ধে আমাদের নিজস্ব ঐতিহ্যবাহী প্রতিকারের মাধ্যমে চিকিৎসা করে চলেছি যা আমাদের পূর্বপুরুষরা আমাদের শিখিয়েছিলেন।

ভালদা ফেররেইরা ডি সুজা নামের আরেকজন বলেন, আমার শ্বাস কষ্ট ছিল । তবে ঘরোয়া ওষুধ নেয়ার পর আমি এখন অনেকটাই সুস্থ আছি।

গাছের ছাল ও মধু দিয়ে ওষুধ তৈরি করছেন

ডেইলি সান'র একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অ্যামাজনে ভাইরাসটি খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে, যেখানে ২০ হাজারেরও বেশি লোক এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এবং ১,৪০০ জন মারা গেছে। এই বিস্তারটি এই অঞ্চলের আদিবাসীদের জন্য ভয় বাড়িয়ে তুলেছে, বিশেষ করে যাদের বিদেশী রোগে ব্যাপকভাবে আক্রান্ত হওয়ার ইতিহাস রয়েছে। ব্রাজিলিয়ান আদিবাসী পিপলস অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে যে ভাইরাসটি ৮৪০ টি আদিবাসী গোষ্ঠীতে সংক্রামিত হয়েছে।

মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো আমাজনের অধিবাসীদের করোনাভাইরাস থেকে বাঁচাতে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন না। তাদের শঙ্কা, করোনাভাইরাস সংক্রমণ হলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকায় আমাজনে অনেক অধিবাসীরই মৃত্যু হতে পারে ।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচএফ