করোনাক্রান্ত বাবার আদর পেতে কাঁদছে অবুঝ শিশু

ঢাকা, শনিবার   ০৪ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ২০ ১৪২৭,   ১২ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

করোনাক্রান্ত বাবার আদর পেতে কাঁদছে অবুঝ শিশু

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:০৬ ৪ জুন ২০২০   আপডেট: ০৪:৪৬ ৪ জুন ২০২০

জানালার গ্রিল ধরে কাঁদছে শিশু

জানালার গ্রিল ধরে কাঁদছে শিশু

বাবার আদর পেতে অবুঝ শিশু যখন-তখন শুরু করে অঝোরে কান্না। তাই না দেখে বাবার মনও হয়ে উঠে ব্যাকুল। আদরের সন্তানকে পিতৃস্নেহে কবে জড়িয়ে নেবে বুকে। বাবা-সন্তানের আদরে মাখামাখি জীবনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে করোনা। এমনই এক দৃশ্য সাংবাদিক মঞ্জুর রহমানের ঘরে।

মঞ্জুর রহমান বেসরকারি টেলিভিশন ইনডিপেনডেন্টের মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি। ২৪ মে তার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। এরপর থেকেই তিনি হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।

করোনায় আক্রান্ত মঞ্জুর বলেন, আমার কোনো উপসর্গ ছিল না। সম্পূর্ণ সুস্থ ছিলাম, এখনো সুস্থ। নমুনা পরীক্ষা না করালেও পারতাম। তবু ২০ মে হাসপাতালে গিয়ে নমুনা দিয়েছি। ২৪ মে বিকেলে করোনা পজিটিভ আসে। তবে হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব সাময়িক নষ্ট থাকায় রিপোর্ট দিতে দেরি হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। এছাড়া রিপোর্ট আসার পর থেকেই পরিবারের কথা ভেবে আলাদা কক্ষে রয়েছি।

তিনি বলেন, পেশাগত কাজে প্রায় সময় বাইরে থাকতে হয়। তাই এক বছর ১০ দিনের ছেলেটিকেও সময় দিতে পারি না। ছেলেটি কথা বলতে না পারলেও পা পা বলতে পারে। আমাকে দেখলেই সে ছোট ছোট পায়ে দৌড়ে কাছে আসার চেষ্টা করে। কিন্তু কোয়ারেন্টাইনে থাকায় তাকে কোলে নিতে পারছি না। পরে গ্রিল ধরেই প্রতিনিয়ত দাঁড়িয়ে থেকে চিৎকার করে। আর পা পা বলে কান্না করে। ছেলেটির এমন দৃশ্য দেখে খুব কষ্ট হয়।

সাংবাদিক মঞ্জুর বলেন, হয়তো কিছুদিনের মধ্যে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট পাবো। কিন্তু জীবন থেকে যে সময়টুকু হারিয়ে গেল তা আর কোনোদিন ফিরে পাব না।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর/