কম খরচে বদলে ফেলুন বাড়ির চেহারা
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=107678 LIMIT 1

ঢাকা, রোববার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ৬ ১৪২৭,   ০২ সফর ১৪৪২

কম খরচে বদলে ফেলুন বাড়ির চেহারা

অনন্যা চৈ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:০৯ ২৬ মে ২০১৯   আপডেট: ০০:০৯ ২৬ জুন ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

প্রত্যেক মানুষই চায়, বাড়ির লুক ধাপে ধাপে পরিবর্তন করতে। কারণ, এক ধরনের গেটআপে বহু দিন থাকলে নিজের কাছেও কেমন জানি অরুচি চলে আসে। বিশেষ করে বাড়িতে মেয়ে মানুষ থাকলেতো কথাই নেই, আপনি না চাইলেও তার জন্য আপনাকে বদলাতে হবে বাড়ির চেহারা। আর যারা সদ্য বিয়ে করে নতুন বাড়িতে উঠেছেন, তাদের বেলায় তো জীবন যায় যায় অবস্থা। চাকরি করেন অথবা বেকার থাকেন এসব দেখার সময় নেই আপনার স্ত্রীর, তবে আপনাকে এই মুহূর্তে বাড়ি সাজাতে হবে, এটা তার চায়-ই চায়! 

এদিকে, বাড়ি সাজাতে দরকার অনেক টাকা। এটি চারটি খানি মুখের কথা না যে, বললে হয়ে যাবে। ভাবছেন তাহলে এই প্যারা থেকে কীভাবে বাঁচবেন? আবার এও চাইছেন, নিজের বাড়িতে নতুন একটা লুক কীভাবে দিবেন? আমূল পরিবর্তনের সময় বা অর্থ হয়তো এই মুহূর্তে আপনার নেই। অথচ ঘরটাও বড় একঘেয়ে লাগছে। চিন্তার কোনো কারণ নেই, কম খরচে বদলাতে পারেন আপনার বাড়ির চেহারা। কিন্তু এর জন্য ঘর রঙ করা যাবে না। কারণ এতে খরচ হয়ে যাবে অনেক বেশি। তাই ঘরের পর্দা হোক বা আসবাব- একটুআধটু অদলবদল করলেই ঘরের পুরো রূপ বদলে যাবে। এছাড়া এখন অনেক ধরনের ছোট ছোট ঘর সাজানোর সামগ্রী পাওয়া যায়, যা দিয়ে অনায়াসে ঘরের লুক পরিবর্তন করা যায়। যেমন ধরুন, একটা দেয়ালে ওয়ালআর্ট করালেন বা ওয়ালআর্ট স্টিকার লাগালেন। অথবা একটা ওয়ালে ল্যামিনেট করালেন।

এছাড়া প্রায় বাড়ির ঘরের কোণ অবহেলিত থাকে। তবে আপনি বদলে ফেলুন সেই কোণগুলো। আর তাতে যদি একটা ওপেন কর্নার বাহক রাখা যায়, পুরো ঘরের এক নতুন লুক সেট হবে। এছাড়া নানা ধরনের ভিনিয়ার্ড বা ল্যামিনেটেড র‌্যাক এখন পাওয়া যায়। বেত বা রট আয়রনের র‌্যাক-যেমনটা আপনার ঘরের সঙ্গে ভালো লাগবে, তেমনটা কিনতে পারেন এসব খুব সহজে। এরপর সাজিয়ে ফেলুন নিজের পছন্দের জিনিস বা অল্পবিস্তর বইপত্র দিয়ে। কাঁসা বা পিতলের বাসনও সাজিয়ে রাখতে পারেন। যা-ই রাখুন না কেন, তা যেন পরিষ্কার থাকে সেদিকে খেয়াল রাখুন।

তবে অনেকেই জায়গার অভাবে দেয়ালে ক্লোজড বক্স ক্যাবিনেট বানান, আপনি কিন্তু সেটা একেবারে করবেন না। সেই জায়গায় যদি আপনি ফ্লোটিংওয়াল র‌্যাকস লাগাতে পারেন, তাহলে দেয়ালে বেশ কিছু লেয়ার আসবে, দেখতেও বেশ সুন্দর লাগবে। আর এখন বাইরে নানা শেপ এবং সাইজের র‌্যাকস পাওয়া যায়। কী রাখতে চান? মূলত সেটা বুঝে র‌্যাক বাছাই করুন। সবসময় বাড়ি রঙ করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাই নানা ধরনের টেক্সচার বা ডিজাইনের ল্যামিনেটসের এখন বিপুল চাহিদা।

ছবি: সংগৃহীত

তবে মাথায় রাখতে হবে, এই ডিজাইন যেন দেয়ালের কোনো ক্ষতি না করে। তবে এই ধরনের ল্যামিনেটসের সাহায্যে ঘরের চেহারার রূপবদল ঘটবে এটা নিশ্চিত। এছাড়া এখন এক ধরনের সলিড ল্যামিনেটসও পাওয়া যায়। যা অন্দরসজ্জার জন্য বেশ জনপ্রিয়। কিউব শেপের ওয়াল শেল্‌ভসের এখন চাহিদা তুঙ্গে। দেয়ালে একটা বা কোঅর্ডিনেট করে তিন, চারটি লাগিয়ে ছোট ছোট শো পিস রাখলে একটা কনটেম্পোরারি লুক আসবে। নানা অ্যাঙ্গেল থেকে ঘরে এটি লাগাতে পারবেন। এছাড়া ছোট ছোট ঘর সাজানোর জিনিস বা ক্যান্ডেলস দিয়ে ভিন্ন লুক আনতে পারেন।

এই সময়ে বাইরেও নানা রঙের আলো পাওয়া যায়। শুধুমাত্র দেয়ালিতেই আলো লাগানোর কনসেপ্ট এখন নেই। আলো দিয়ে অনায়াসেই ঘরের লুক চেঞ্জ করতে পারেন। তবে ঘরে যা-ই করুন না কেন, তা যেন অন্যান্য আসবাবপত্র বা ঘরের দেয়ালের রঙের, ঘরের মাপের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে হয়। যদি তা ভিন্ন হয় তাহলে সৌন্দর্য ওইভাবে ফুটবে না। 

আরো কিছু টিপস আপনাদের জন্য নিচে দিয়ে দিলাম, যা ঘর সাজাতে অনেক বেশি সহায়ক হবে বলে আমার বিশ্বাস- 

সবার আলমারিতেই এমন কিছু শাড়ি থাকে যা সচরাচর পরা হয় না। কিংবা হয়তো ছিঁড়ে গেছে কোথাও, ফলে পুরো শাড়িটাই বাতিল। এমন শাড়ি বা ওড়না থাকলে সেগুলো দিয়ে বানিয়ে ফেলুন কুশন কাভার বা টেবিল ম্যাট। বিনা খরচেই দারুণ স্টাইলিশ সাজ হবে। 

পুরনো জিনিস ফেলবেন না, বরং এগুলো নতুন করে ব্যবহার করুন। যেমন পুরনো বাটি, গামলা ইত্যাদিকে রং করে ফুলের টব বানিয়ে ফেলুন। হাতল ভাঙা মগও এসব কাজে দারুণ কাজে আসে। 

চটজলদি ঘরের সাজ বদলে ফেলতে কিছু ইনডোর প্ল্যান্ট কিনে ফেলুন। অল্প টাকায় এর চাইতে ভালো সাজ আর হতে পারে না। 

বিয়ে বাড়ির আলোকসজ্জার মরিচ বাতি কিনে ফেলুন কিছু। ঘরের পিলারের সঙ্গে, জানালার গ্রিলে জড়িয়ে দিন। দেখতে দারুণ দেখাবে।

ঘর সাজাবার জন্য মাটির পণ্যের কোনো তুলনা হয় না। ২০ থেকে ২০০ টাকার মাঝেই দারুণ সব শোপিস পেয়ে যাবেন। 

ঘরের যে কোনো একটা দেয়াল রঙ করে ফেলুন। বেশ কম খরচেই আসবে নতুনত্ব। 

ঘর সাজাতে হাতে তৈরি পণ্য ব্যবহার করুন। যেমন, নকশী কাঁথা বা এমব্রয়ডারি করা চাদর, হাতে তৈরি পুতুল। নিজের হাতে তৈরি জিনিসকে গুরুত্ব দিন। শৈল্পিক ব্যবহারে আপনার গৃহ হয়ে উঠবে দৃষ্টি নন্দন। 

ঘরের বিভিন্ন স্থানে ব্যবহার করুন হরেক রকমেয় আয়না ও ঘণ্টা। অল্প খরচে এটাও দারুণ সুন্দর দেখায়। 

মোমবাতি হতে পারে আপনার নতুন ঘরের আরেক সঙ্গী।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই