Alexa কবিরাজের ঝাড়ফুঁক দেয়া গুড় খেয়ে ইমামের মৃত্যু

ঢাকা, শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৫ ১৪২৬,   ২০ মুহররম ১৪৪১

Akash

কবিরাজের ঝাড়ফুঁক দেয়া গুড় খেয়ে ইমামের মৃত্যু

ডেস্ক নিউজ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:২৭ ২৪ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ২১:৪৫ ২৪ আগস্ট ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

পাবনার সুজানগরে ঝাড়ফুঁক দেয়া গুড় খেয়ে শনিবার ভোরে হাফেজ মো.আব্দুর রাজ্জাক নামে এক ইমামের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনি আল এহসান একাডেমির শিক্ষক এবং বনগ্রাম মসজিদের ইমাম। তিনি উপজেলার দুলাই ইউপির চরগোবিন্দপুর গ্রামের মৃত ছগির প্রামাণিকের ছেলে।

সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও ডা. রকি বলেন, শুক্রবার রাতে ডায়রিয়া ও বমি হওয়ায় আব্দুর রাজ্জাক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে শনিবার ভোরে তার মৃত্যু হয়। 

আব্দুর রাজ্জাকের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে দাবি করে সুজানগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন তার ভাই আব্দুল মমিন প্রামাণিক।

আব্দুল মমিন বলেন, আব্দুর রাজ্জাক স্ত্রী সাথী খাতুনকে নিয়ে নিউগির বনগ্রাম গ্রামের মোহাম্মদ আলী মদনার বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। তার বাসার মালিক মোহাম্মদ আলী মদনার ছেলে মামুনের বাড়ি থেকে তিন লাখ টাকা চুরি হয়। এ চুরির ঘটনায় স্ত্রী সাথী খাতুন জড়িত বলে অভিযোগ করেন মামুন। এ নিয়ে আব্দুর রাজ্জাক ও তার স্ত্রীর ওপর মানসিক চাপ প্রয়োগ করতে থাকেন।

শুক্রবার দুপুরে মামুন একজন কবিরাজ নিয়ে আসেন। ওই কবিরাজ গুড় ঝাড়ফুঁক দিয়ে আব্দুর রাজ্জাককে খাওয়ায়। এর পরই মসজিদে আসর ও মাগরিব নামাজ আদায় করার পর বমি ও পাতলা পায়খানা হলে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। এ অবস্থায় তাকে শুক্রবার রাতেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে শনিবার ভোরে আব্দুর রাজ্জাকের মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে মামুন বলেন, তার টাকা হারিয়ে যাওয়ার পর একসঙ্গে কবিরাজের ঝাড়ফুঁক দেয়া গুড় ১৬ জন খেয়েছেন, তাদের কোনো সমস্যা হয়নি।

সুজানগর থানা ওসি শরিফুল আলম বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলেই আব্দুর রাজ্জাকের মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে