Alexa চুরি করে কন্যাভ্রূণ বিক্রি! অতঃপর...

ঢাকা, শনিবার   ২৪ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৯ ১৪২৬,   ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

চুরি করে কন্যাভ্রূণ বিক্রি! অতঃপর...

 প্রকাশিত: ২১:৫৫ ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭   আপডেট: ১৩:১৩ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৭

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

জন্মের আগেই হাজার হাজার টাকায় বিক্রি হয়ে যাচ্ছে কন্যাভ্রূণ! আর দাম নেয়া হচ্ছে কখনো ১৫ হাজার টাকা, কখনো ৮০ হাজার। এমনকি জন্মের পর শিশুটিকে যদি পছন্দ না হয় ক্রেতার, তা হলে তার জন্য বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছে।

এর সঙ্গে জড়িত শিশুপাচার চক্র। সম্প্রতি ভারতের হায়দরাবাদে চালানো একটি স্টিং অপারেশনে সামনে আসে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য।

এই শিশুপাচার চক্রের খবর তাদের কাছে আগেই ছিল। তাই স্টিং অপারেশনের জন্য হায়দরাবাদে একটি অস্থায়ী অফিস খুলে তারা। শিশুপাচার চক্রের এক সদস্যকে শিশু কেনার কথা জানিয়ে খবর দেয়া হলে রবি নামে এক জন টিভি চ্যানেলের অস্থায়ী অফিসে নিয়ে আসেন এক অন্তঃসত্ত্বাকে। ওই মহিলাকে তার দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিয়ে রবি জানান, তার গর্ভে কন্যাভ্রূণ রয়েছে। আলট্রাসাউন্ডের মাধ্যমে পরীক্ষা করে ডাক্তারই তা জানিয়েছেন।

এক সপ্তাহের মধ্যেই সদ্যোজাতকে ক্রেতার হাতে তুলে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন রবি। তিনি জানান, জন্মের পর শিশুটিকে যদি পছন্দ না হয় তাহলে ক্রেতার জন্য বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে তার বোনের তিনটি শিশুকন্যার মধ্যে একজনকে বেচে দেবে। কথার একপর্যায়ে শিশুটির জন্মের আগেই ঠিক হয়ে যায় তার দাম। রবি শিশুটির জন্য ৮০ হাজার টাকা দাবি করে। সে জানায়, এর মধ্যে ৩০ হাজার টাকা নিজের জন্য রেখে বাকি ৫০ হাজার টাকা হাসপাতালের নার্সকে দেবে।

জানা যায়, হায়দরাবাদ থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে কালওয়াকুর্তি হাসপাতালের সঙ্গে যোগাযোগ আছে রবির। সেই মতো ভ্রূণের লিঙ্গ নির্ধারণ থেকে শিশুর জন্ম, সবটাই করানো হয় ওই হাসপাতালে। তাই যারা ক্রেতা সেজে রবির সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন, সেই সাংবাদিককেও কালওয়াকুর্তি হাসপাতালে নিয়ে যান রবি। যে নার্সের কথা বলা হয়েছিল তার তার সঙ্গেও পরিচয় করিয়ে দেন রবি।

এরপর শুরু হয় আরেক নাটক। শিশু জন্মানোর পর সেই নার্সই শিশুটির ডেথ সার্টিফিকেট দেন। শিশুটির মা আর তার পরিবারের কাছে শিশুকে মৃত প্রমাণ করতে শিশুটিকে তড়িঘড়ি কবর দেয়ার জন্য ব্যস্ততা দেখাতে শুরু করেন রবি। গর্ত খুঁড়ে ফেলে। তারপর সকলের নজরের আড়ালে সেই গর্তের ওপর পাথর চাপা দিয়ে দেন রবি। এরপর শিশুটিকে নিয়ে ক্রেতার হাতে তুলে দেন তিনি। গরিব মানুষদের কাছ থেকে কম টাকায় কন্যাভ্রূণ কিনে এভাবে তাদের অনেক বেশি টাকায় ক্রেতাদের কাছে বেচে দেন রবি। গত শুক্রবার হায়দরাবাদ থেকে রবিসহ পাঁচ শিশুপাচারকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই

Best Electronics
Best Electronics