ওষুধের খাতায় রোগীর নাম, বাস্তবে নেই

ঢাকা, রোববার   ০৫ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৩ ১৪২৬,   ১২ শা'বান ১৪৪১

Akash

রেলওয়ে হাসপাতাল রাজশাহী 

ওষুধের খাতায় রোগীর নাম, বাস্তবে নেই

ফাতিন ইশরাক নিয়ন, রাজশাহী ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:২৭ ১৩ নভেম্বর ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

চিকিৎসক ও নার্স সংকটে ধুঁকছে রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের হাসপাতালগুলো। এ অঞ্চলে ছয়টি হাসপাতালে ৯৭ জন চিকিৎসক, সিনিয়র নার্স, ফার্মাসিস্টের পরিবর্তে রয়েছেন মাত্র ৪৩ জন।

এছাড়া হাসপাতালগুলোতে প্রতি বছর বরাদ্দ দেয়া কোটি টাকার ওষুধ বিতরণ করা হচ্ছে কাল্পনিক রোগীদের নামে। কাগজে-কলমে এসব রোগীর তথ্য থাকলেও বাস্তবে নেই। এ কারণে পর্যাপ্ত সেবা ও ওষুধ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে রোগীরা।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে রাজশাহী রেলওয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন মাত্র ২১৭ জন রোগী। অথচ ওই বছর হাসপাতালের জন্য কেনা হয়েছে ১৬ লাখ ৭৩ হাজার ১০৫ টাকার ওষুধ। তবুও প্রয়োজনীয় ওষুধ পাচ্ছেন না রোগীরা। তাদের প্রশ্ন, লাখ লাখ টাকার ওষুধ গেল কোথায়?

সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজশাহী রেলওয়ে হাসপাতালের আউটডোর-ইনডোরে একজন রোগীও নেই। বসে আছেন ডাক্তার ও নার্সরা। এমন দৃশ্য প্রতিদিনের। অথচ নামে-বেনামে বিতরণ করা হচ্ছে ওষুধ। রোগী না এলেও, ওষুধের রেজিস্টার ভর্তি হচ্ছে হাজারো নামে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজশাহী রেলওয়ে হাসপাতালের এক কর্মচারী বলেন, প্রতিদিনই রোগীদের নাম লিখে নিজেদের লোককে ওষুধ দেয়া হয়। এর সঙ্গে উপর লেভেলের কর্মকর্তা ও ডাক্তাররা জড়িত।

হাসপাতালের ফার্মাসিস্ট গোলাম কবির বলেন, অনেক সময় ডাক্তাররা ব্যস্ত থাকেন। তখন আমরাই ওষুধ দিয়ে দেই। পরে ডাক্তারের কাছে থেকে স্লিপ করে নেই। তবে স্লিপ ছাড়া কোনো ওষুধ দেয়া হয় না।

হাসপাতালের ডিএমও ডা. এস.এম মারুফুল আলম বলেন, আমরা তো ওষুধ লিখে দেই। বিতরণ বিভাগ এটি বিতরণ করে। অতিরিক্ত দেয়ার কোনো অভিযোগ নেই। তবে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

রেলওয়ে পশ্চিম অঞ্চলের জেনারেল ম্যানেজার হারুন অর রশিদ বলেন, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের হাসপাতালগুলোতে কোনো অনিয়ম থাকলে খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হাসপাতালের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এস.এ.এম এমতেয়াজ বলেন, নানাবিধ সমস্যার কারণে রেলওয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা হাসপাতালে না এসে প্রাইভেট ক্লিনিক থেকে চিকিৎসা নেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর