Alexa ওজন কমাতে সকালের নাস্তায় কী খাবেন? জানালেন চিকিৎসক

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ৭ ১৪২৬,   ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Akash

ওজন কমাতে সকালের নাস্তায় কী খাবেন? জানালেন চিকিৎসক

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৪:৪৭ ২১ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১০:৩৮ ২১ জানুয়ারি ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

সময়ের সঙ্গে তাল মিলাতে গিয়ে কাজের ব্যস্ততায় মুটিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন পেশার মানুষ। ফলে হারিয়ে যাচ্ছে কাজের উদ্দীপনা। আর স্বাস্থ্যের ওপর পড়ছে নানা নেতিবাচক প্রভাব।

এতে সবসময় ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখতে পরার্মশ দেন চিকিৎসকরা। তবে নানা পদ্ধতিতে ডায়েট করেও শরীরের ওজন কমানো যায় না। তাদের জন্য ব্রেকফাস্ট হতে পারে ওজন কমানোর হাতিয়ার। ব্রেকফাস্টে সঠিক সময় ও খাবার বাছাইয়ের ওপর জোর দিতে বলেছেন ডা. জাহাঙ্গীর কবির।

তিনি বলেন, ব্রেকফাস্ট মূলত দীর্ঘক্ষণ না খাওয়ার পর কোনো কিছু খাওয়া বা পান করা বুঝায়। তবে আমরা ব্রেকফাস্ট বলতে সকালের নাস্তাকে বুঝে থাকি। ব্রেকফাস্টটি দুপুরেও করা যেতে পারে। তাই ওজন কমাতে হলে ব্রেকফাস্টের সময় ও খাবারের দিকে ভালো করে নজর দিতে হবে।

কার্বোহাইড্রেড বা শর্করা মানুষের মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি। তবে সেটি ক্ষতির কারণ হতে পারে। আমরা দিনের শুরুতে অর্থাৎ ব্রেকফাস্টের সময় শর্করা গ্রহণ করলে ওজন কমানোর সম্ভাবনা কমে যায়। কারণ মানবদেহে শর্করা বাড়লে ইনসুলিন হরমোন বাড়তে থাকে। যা ফ্যাট ধরে রাখতে সাহায়তা করে। কারণ ইনসুলিন হচ্ছে এনাবলিক। যা শরীরে গঠন প্রক্রিয়ায় কাজ করে।

এদিকে মানবদেহের জন্য স্টেরয়েড নামের অপর একটি হরমোন রয়েছে। যেটি শরীরের প্রোটিন থেকে চিনি কমায়। এছাড়া চর্বিকে পুড়িয়ে ফেলে। স্টেরয়েডটি হলো ক্যাটাবলিক হরমোন। যার কাজই সবকিছুকে ভেঙে দেয়া। মানুষ যখন দুশ্চিতায় থাকে, তখন এ হরমোন বেশি নিঃসরণ হয়। তবে হরমোনটি ক্ষতিকর নয়। তবে দুশ্চিতা ছাড়াও প্রাকৃতিভাবে সকালের দিকে হরমোনটি বেশি নিঃসরণ হয়। 

সকালের ব্রেকফাস্টের সময় বেশি পরিমাণের শর্করা সমৃদ্ধ খাবার খেলে নিঃসরণ করা ইনসুলিন হরমোন স্টেরয়েড হরমোনের বিপরীতে কাজ করে। এতে ওজন কমতে বাধাগ্রস্ত হয়। তিনি আরো বলেন, একদিকে ইনসুলিন শরীরে অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে চর্বি জমা করে। আর স্টেরয়েড মাংসপেশী ভেঙে ফেলে। এতে ভাঙা ও আর গড়ায় যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টি হয়। ফলে ওজন বাড়তে থাকে। সুতরাং সকালে দুই হরমোনের মধ্যে বৈরী অবস্থা সৃষ্টি করা যাবে না।

কখন ব্রেকফাস্ট করবেন?

ডা. জাহাঙ্গীর কবির বলছেন, ঘুম ভাঙার দুই থেকে তিন ঘণ্টা পর ব্রেকফাস্ট করুন। আর যারা অনিয়মিত, তারা ১২টার দিকে ব্রেকফাস্ট করতে পারেন। তবে ঘুম থেকে উঠার সঙ্গে সঙ্গে কোনো কিছু খাবেন না। কারণ প্রাকৃতিভাবে ওই সময় স্টেরয়েড হরমোন বেশি নিঃসরণ হয়। অনেকে বলে, ঘুম থেকে উঠে এক থেকে দুই লিটার পানি করতে। আসলে এ পরামর্শ ঠিক না। সর্বোচ্চ দুই গ্লাস পানি পান করতে পারেন।

তিনি বলেন, সকালে শর্করা খাবার কমাতে হবে। এতে স্টেরয়েডের প্রভাবে চর্বি পুড়ে যাবে। তবে খেয়াল রাখা জরুরি যে, শর্করা শরীরের পানি ধরে রাখে। এছাড়া শর্করা থেকে উৎপাদিত ইসুলিন হরমোন পানি বা সোডিয়াম ক্লোরাইড ধরে রাখে। সোডিয়াম ক্লোরাইড শরীরর জন্য বেশ উপকারি। তাই কম শর্করা খাবার খেলে লবণ খেতে হবে। যারা নিম্ন কার্ব ডয়েট করছেন বা কিটো ডায়েট করছেন এবং শরীরের শর্করা কমাতে চাইছেন, তাদের সোডিয়াম গ্রহণ করতে হবে।

কারণ আমরা সাধারণ যে পানি খাই, সেটিতে কোনো সোডিয়াম থাকে না। আবার মূত্রত্যাগ, ঘামের সঙ্গে সোডিয়াম বের হয়। তাই পুনরায় সোডিয়াম ক্লোরাইডকে পূরণ করতে হবে। যদি সোডিয়াম গ্রহণ না করি, তবে শরীরের যে ইলেক্ট্রোলাইট থাকে, সেটি ভারসাম্যহীন হবে। তাই যারা ডায়েটে আছি, তারা সকালে এক বা দুই গ্লাস পানির সঙ্গে দুই চিমটি লবণ ব্যবহার করতে পারি। আর শর্করা সমৃদ্ধ খাবার কমানোর চিন্তা করি। তিনি আরো বলেন, অন্যান্য ডায়েটে যারা আছেন, আমার পরামর্শ তাদের জন্য নয়।

ব্রেকফাস্টে কি খাবেন?

ডা. জাহাঙ্গীরের পরামর্শ, সকালে দুই থেকে তিনটি ডিম কুসুমসহ খাবেন। এছাড়া টমেটো ও ঘি দিয়ে ডিম খেলে ভালো হয়। এছাড়া এক্সটা ভার্জিন অলিভ ওয়েল দিয়ে শাকসবজি খাওয়ার চেষ্টা করবেন। সবুজ শাকসবজিতে বেশ পটাশিয়ামের পাশাপাশি অনেক মাইক্রো নিউট্রন আছে। যা শরীরের জন্য ভালো চর্বি উৎপাদন করে।

তিনি আরো পরামর্শ দেন, দেরিতে ব্রেকফাস্ট করলে স্টেরয়েড নিঃসরণের পরিমাণ কমে যায়। তখন ব্রেকফাস্টের খাবার খেলে চর্বি জমার পরিমাণ অনেকাংশে কমে আসবে। এতে শরীরের ওজন কমতে থাকবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ/জেএমএস