এ বিশ্বকাপের নতুন উপহার যারা

ঢাকা, সোমবার   ০৬ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৩ ১৪২৬,   ১২ শা'বান ১৪৪১

Akash

এ বিশ্বকাপের নতুন উপহার যারা

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:০৮ ১৪ জুলাই ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বকাপ প্রায় শেষ বলা যায়। প্রতিবারের মতোই এই বিশ্বকাপেও বেশ কিছু নতুন মুখ নিজের নাম চিনিয়েছেন। যোগ্যতা দিয়ে উঠতি ক্রিকেটার হিসেবে প্রমান করেছেন নিজেকে।

এমন কিছু আনকোরা ক্রিকেটার রয়েছেন যাদের উপর লো এক্সপেক্টেশন থাকার পরও ভালো পারফর্ম করেছেন এবারের বিশ্বকাপ আসরে। কেমন ছিল তাদের পারফর্মেন্স? 

ডেইলি বাংলাদেশের পাঠকদের কাছে আজ তুলে ধরা হলো তাদের কিছু সফলতার গল্প। 

১. অ্যালেক্স ক্যারি:

এই লিস্টের প্রথমেই আসবে অ্যালেক্স ক্যারির নাম। উইকেট-কিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে দারুন শাইন করেছেন এই ওয়ার্ল্ড কাপে। বেশ চাপের মাঝেও নার্ভ শক্ত রেখে খেলেছেন, যেটা এখন অধিকাংশ অজি ক্রিকেটারদের মধ্যে সহসা দেখা যায় না। ৬২.৬ এভারেজে করেছেন ৩৭৫ রান।

এ ধারা অব্যাহত রাখলে মিডল অর্ডারে আরেকজন মাইক হাসি পেতে যাচ্ছে অজিরা, যে ধরে খেলতে পারে, আবার সময়মতো মারতেও পারে।

২. রাসি ভান ডার ডুসেন:

সাউথ আফ্রিকান সেট আপে নতুন প্লেয়ার বলা যায় তাকে। ৩০ বছর বয়সে এই বছর পাকিস্তানের বিপক্ষেই তার অভিষেক। প্রথম ম্যাচেই করেন ইম্প্রেসিভ ৯৩ রান। এরপর আর ফিরে তাকাতে হয় নি তাকে।

এই বিশ্বকাপে প্রোটিয়াদের দুর্বল মিডল অর্ডারে খুটি হয়ে দাঁড়িয়েছেন বার বার। ৬৬ এভারেজে করেন ৩৩১ রান। যদিও বয়স তার বিপক্ষে, এর পরও নাম্বার চারে দারুন এক অল্টারনেটিভ পেল সাউথ আফ্রিকা।

৩. মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন:

বাংলাদেশ দলের হয়ে প্রথমবার বিশ্বকাপ খেললেন সাইফউদ্দিন। তাকে নেওয়ায় বিশ্বকাপের আগে অনেক প্রশ্ন এসেছিল। তবে বিশ্বকাপ শেষে তার জায়গা ভালোভাবেই প্রমাণ করেছেন সাইফ।

৭ ম্যাচে ১৩ উইকেট, আবার ব্যাট হাতে ২৯ এভারেজে ৮৭ রান তার পক্ষেই কথা বলছে। 

৪. শাহিন আফ্রিদী:

১৯ বছর বয়সী শাহিন আফ্রিদীকে নিয়ে আশা কম ছিল পাকিস্তানের। শুরুতে একাদশে সুযোগ ও পাননি।

তবে পরে সুযোগ পেয়ে ভালোভাবেই নিজেকে প্রমাণ করেছেন তিনি। ৫ ম্যাচে নিয়েছেন ১৬ উইকেট, ইকোনমি মাত্র ৪.৯৬।

৫. নিকোলাস পুরান:

২৪ বছর বয়সী নিকোলাস পুরানকে গত বিপিএল থেকে চেনে বাংলাদেশী সমর্থকরা। সেবার বিধ্বংসী কিছু ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। এই বিশ্বকাপেও স্রোতের বিপরীতে ভালো কিছু ইনিংস দেখেছি সবাই। নিজের খেই হারিয়ে না ফেললে, সুন্দর একটা ক্যারিয়ার অপেক্ষা করছে তার জন্য।

তার শক্তিশালী দিক হলো গায়ে গতরে অন্য উইন্ডিজ প্লেয়ারদের মতো না হলেও খুব সহজে বাউন্ডারি পার করতে পারে। আর ১০০ স্ট্রাইক রেট ও ৫২ এভারেজে ৩৬৭ রান তার উজ্জ্বল পারফরম্যান্সের পক্ষেই কথা বলছে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল/সালি