এফবিসিসিআইয়ের বাজেটোত্তর আলোচনা অনুষ্ঠিত

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ১৩ ১৪২৭,   ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

এফবিসিসিআইয়ের বাজেটোত্তর আলোচনা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:২৬ ২৭ জুন ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেটে ভ্যাট, আয়কর এবং আমদানি শুল্ক হারে প্রয়োজনীয় বেশকিছু সংশোধনের দাবি জানিয়েছে ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই)। 

বৃহস্পতিবার রাজধানীর এক হোটেলে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় এফবিসিসিআই অধিভূক্ত বিভিন্ন চেম্বার এবং অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিরা বক্তব্য তুলে ধরেন। এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ। 

এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম বলেন, শিল্পখাতে বিনিয়োগ, উৎপাদন সক্ষমতা বৃদ্ধি, রফতানিমূখী শিল্পের বহুমূখী প্রসার, প্রণোদনা ও অধিক প্রতিযোগিতা সক্ষম করাকে বাজেটে উন্নয়ন কৌশল হিসাবে নেয়া হয়েছে যা ইতিবাচক।

প্রস্তাবিত বাজেটে- শিল্প ও বিনিয়োগ সহায়ক ইতিবাচক উদ্যোগের পাশাপাশি কিছু বিষয়ের প্রস্তাবনা করা হয়েছে যা পুর্নবিবেচনার জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ করা হয়।

আলোচনা সভাআলোচনা সভায় -শিল্পের কাঁচামাল ও মূলধনী যন্ত্রপাতি থেকে আগাম কর প্রত্যাহার,যোগানদারের ক্ষেত্রে মূসক ৭.৫ শতাংশ থেকে পাঁচ শতাংশ করা, ৫ শতাংশ, ৭.৫ শতাংশ ও ১০ শতাংশ মূসক প্রদানকারীদের ক্ষেত্রে উপকরণ কর রেয়াত নেয়ার সুযোগ দেয়া,পৃথক নিবন্ধনের পরিবর্তে কেন্দ্রীয় নিবন্ধনের বিধান করাসহ বেশ কিছু প্রস্তাবনা তুলে ধরা হয়।

শেখ ফজলে ফাহিম আরো বলেন, এফবিসিসিআই অধিভূক্ত ১০৬টি চেম্বার, ৪০০টি অ্যাসোসিয়েশন এবং স্টেকহোল্ডারদের মতামতের ভিত্তিতে এফবিসিসিআইয়ের বাজেট পরবর্তী মূল্যায়ন করা হয়েছে। বাজেট চূড়ান্ত অনুমোদনের পূর্বে এফবিসিসিআইয়ের বাজেট পরবর্তী মূল্যায়ন যথাযথভাবে বিবেচনা করা হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি  মো. মুনতাকিম আশরাফ এবং সহ-সভাপতি  মো. সিদ্দিকুর রহমান,  রেজাউল করিম রেজনু ও মীর নিজামউদ্দিন প্রমুখ। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএস/এমআরকে