Alexa একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন আজ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৬,   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪১

একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ০৫:৫২ ৩০ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ০৬:০৪ ৩০ জানুয়ারি ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন আজ বুধবার বসছে। এদিন বিকেল ৩টায় ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে অধিবেশনের কার্যক্রম শুরু হবে।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সংবিধানের ৭২ অনুচ্ছেদের (১) দফায় দেয়া ক্ষমতাবলে গেল ৯ জানুয়ারি সংসদের এ অধিবেশন আহ্বান করেন। বুধবার থেকেই একাদশ জাতীয় সংসদের পাঁচ বছরের মেয়াদ শুরু হবে। 

এ প্রসঙ্গে স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী জানান, ৩০ জানুয়ারি থেকে একাদশ সংসদের মেয়াদ শুরু হবে। শেষ হবে ২০২৪ সালের ২৯ জানুয়ারি। এই সংসদের অধিবেশনে সরকার ও বিরোধী দলের সব সদস্যকে উপস্থিত থাকতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

তিনি আরো জানান, প্রথমদিন ডেপুটি স্পিকারের সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হবে। স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচনের পর অধিবেশন মুলতবি করা হবে। এরপর নতুন স্পিকার শপথ নিয়ে মুলতবি অধিবেশন শুরু করবেন।

সংবিধান অনুযায়ী, বছরের প্রথম অধিবেশন শুরুর দিন এবং একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি সংসদে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড তুলে ধরে দিকনির্দেশনামূলক ভাষণ দেবেন।

তবে সংসদীয় রেওয়াজ অনুযায়ী, চলমান সংসদের কোনো এমপি মারা গেলে অধিবেশন শুরুর পর শোক প্রস্তাব গ্রহণ করে ওই দিনের মতো অধিবেশন মুলতবি করা হয়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচিত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গেল ৩ জানুয়ারি মারা যান। ফলে রেওয়াজ অনুযায়ী শুরুর পর শোক প্রস্তাব গ্রহণ করে অধিবেশন কিছুক্ষণের জন্য মুলতবির পর পুনরায় শুরু করা হবে। এরপর রাষ্ট্রপতি ভাষণ দেবেন। 

এছাড়া সংসদের প্রথম অধিবেশনে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করা হবে। সংবিধানের ৭৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, নতুন সংসদের প্রথম বৈঠকে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করতে হয়। এ জন্য কমপক্ষে এক ঘণ্টা আগে নোটিশ দিতে হয়। এতে একজন প্রস্তাবক, একজন সমর্থক ও প্রার্থীর সম্মতি লাগবে।

বছরের প্রথম ও একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশ হিসেবে এই অধিবেশনের মেয়াদকাল দীর্ঘ হবে। তবে সংসদ কার্য-উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে অধিবেশনের মেয়াদ ও কার্যক্রম চূড়ান্ত করা হবে। সংসদ সচিবালয় থেকে জানানো হয়, এরই মধ্যে অধিবেশন শুরুর সব প্রস্তুতি শেষ করেছে সংসদ সচিবালয়।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ ডিসেম্বর ২৯৯ সংসদীয় আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ এককভাবে পায় ২৫৭টি আসন। জাতীয় পার্টি পেয়েছে ২২টি এবং বিএনপি পায় ৭টি আসন। এ ছাড়া ওয়ার্কার্স পার্টি ৩টি, গণফোরাম ২টি (এর মধ্যে ‘ধানের শীষ’ প্রতীক নিয়ে একজন এবং গণফোরামের ‘উদীয়মান সূর্য’ প্রতীক নিয়ে একজন), বিকল্পধারা বাংলাদেশ ২টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ২টি, তরিকত ফেডারেশন ১টি, জাতীয় পার্টি (জেপি) ১টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৩টি আসন পায়।

পরে ৩ জানুয়ারি সংসদ ভবনের শপথ কক্ষে চার ধাপে একাদশ সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত ২৯৮ জন সদসস্যের মধ্যে ২৮৯ জন শপথ নেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সংবিধান ও কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী প্রথমে নিজে শপথ গ্রহণ করেন এবং শপথ বইয়ে সই করেন। এরপর তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ অন্যদের শপথ পড়ান। সেদিন অসুস্থতার কারণে আওয়ামী লীগের সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম শপথ নিতে পারেননি। পরে তিনি মারা যান। আর জাতীয় পার্টির হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এবং আওয়ামী লীগের এ কে এম রহমতুল্লাহ পরে শপথ নেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর