Exim Bank
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৯ জুন, ২০১৮
Advertisement

একজন মাহতিম শাকিব, অপরাধী এবং আমাদের সংস্কৃতি

 নিয়াজ মাহমুদ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:১৯, ১৩ জুন ২০১৮

৯৩১১ বার পঠিত

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

আমরা অনেকেই জানি আজকের এই মাহতিম শাকিব এক দিনের না!  দীর্ঘ দশ বছর তিনি গানের চর্চা করেছেন! আর হঠাৎ করে ইচ্ছা পেইজ থেকে দেয়া একটা ভিডিওতেই দেশজুড়ে ছেলেটার নাম। অন্যদিকে টুম্পা খান তো অপরাধীর কভার করে শুধু দেশই না, বরঞ্চ রীতিমতো কলকাতায় ও সাড়া ফেলে দিয়েছে।

ওইদিন একাত্তর টিভিতে মিউজিক বাজ নামে যে অনুষ্ঠান হচ্ছিল, হঠাৎ করে মাহতিম শাকিব এর গান গাওয়া শেষেই জিজ্ঞাসা করে বসলেন , “তোমার যে দন্ড হতে পারে, তা কি তুমি জানো!!” মাহতিম শাকিব এর অকপট উত্তর ছিল “ আমার দন্ড হলে আমি রাজি আছি, তবে আমি আমার আবেগকে প্রকাশ করবোই। তার এমন উত্তর সমর্থন করাই যায়। তবে একটা জিনিস তাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যে আসলে রবীন্দ্রনাথের মতো বিশ্বনন্দিত লেখকের আসল গান আর সুরের বিকৃতি এমন কোনো পর্যায়ে না যায়, যাতে করে মূল লেখকের অসম্মান না হয়।

আবার টুম্পা খান আরমান আরিফ এর গানটা ও কভার করলো। সবকিছুই ঠিক আছে। তবে সঙ্গীতকে নিছক বিনোদনের খোরাক না ভেবে শিল্প ভাবলে সমস্যা কি!! বাঙালি জাতির একটা সংস্কৃতি বোধ আছে। সঙ্গীত এর ঐতিহ্য আছে। সারা পৃথিবীজুড়ে ছড়িয়ে আছে এর নাম ডাক। কিন্তু আমরা কি সঙ্গীতকে শুধুই সামনে আসার জন্য কিংবা শিল্প না ভেবে নিছক বিনোদনের কথাই ভেবে যাচ্ছি। বাংলা সংস্কৃতির কোনো ভয়াবহ বিপর্যয় ডেকে আনবে না তো এসব!

কিছুদিন আগে দেখলাম রেডিও নেক্সট এ মাহতিম হিন্দী গান গাচ্ছেন, ইউটিউবে সে ভিডিও আছে। যেই ছেলেটা পুরোনো বাংলা গানগুলো আবার মানুষের সামনে হাই কোয়ালিটি তে নিয়ে আসার মহৎ উদ্যোগ নিল  সেই ছেলেটাকে দিয়ে হিন্দী গান গাওয়ানোটাও কতটুকু যৌক্তিক। আর আমাদের অনেককেই দেখলাম লাইভ একটা কনসার্ট এর গানের জন্য কমেন্টে সমালোচনা করতে। এরকম সমালোচনা হতেই পারে। তবে জনসাধারণের সমালোচনা করার জন্য ও নিজেদের লাগাম নিয়ন্ত্রণে রাখা দরকার। কিছু সমস্যা একজন শিল্পীর থাকতেই পারে।

তাই বলে অমন খাটো করে দেখবার কিছুই নেই। পারলে উৎসাহ দিন , না পারলে গঠনমূলক সমালোচনা করুন এবং ওই প্রতিষ্ঠান গুলোকেও যেমন মানুষ খুব ভালোভাবে দেখে, এবং এই শিল্পীদের ও যেহেতু অনেকেই অনুসরণ করে, সেহেতু তাদের  হিন্দী গাওয়ানোর ব্যাপারে, কিংবা বিকৃতির জন্য এবং নিজেদের সংস্কৃতি রক্ষার ব্যাপারে অবদান নিয়ে প্রশ্ন  উঠলে যে তাদের কাছে সঠিক কোনো জবাব থাকতেই হবে  এমন বাধ্যবাধকতা কিন্তু থেকেই যায়! এই শিল্পীদের ও তাই সবকিছু নিয়ে সচেতন হবার এখনি শ্রেষ্ঠ সময়!

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ  

 

সর্বাধিক পঠিত