এএফএমসিতে বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস পালিত

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৪ ১৪২৬,   ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

এএফএমসিতে বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:০৫ ১১ জুন ২০১৯  

ছবি- আইএসপিআর

ছবি- আইএসপিআর

বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলেয়ে ৩১ মে বাংলাদেশ পালন করে বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস। এরই ধারাবাকিতায় আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল কলেজে (এএফএমসি) পালিত হয়েছে বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস।

মঙ্গলবার এএফএমসি ক্যাম্পাসে আয়োজন করা হয় বর্ণাঢ্য এক র‌্যালির। এছাড়া, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড এএফএমসিতে একটি সেমিনারের আয়োজন করে। 

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর (আইএসপিআর) থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডেপুটি কমান্ড্যান্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাইদুর রহমানের। এ সময় বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস উপলক্ষ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র (ডব্লিউএইচও-হু) ভূমিকা ও তামাকের বিভিন্ন ক্ষতিকর প্রভাব ও এ থেকে বেরিয়ে আসার বিভিন্ন উপায় তুলে ধরা হয়।সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন- এ.এফ.এম.সি এর কমান্ড্যান্ট ও চেয়ারপার্সন মেজর জেনারেল মো. মুস্তাফিজুর রহমান। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশনের সভাপতি প্রফেসর মো, আলী হোসেন, বিশেষ অতিথি ছিলেন মেজর জেনারেল মো. আজিজুল ইসলাম,কনসালটেন্ট ফিজিশিয়ান জেনারেল, বাংলাদেশ আর্মড ফোর্সেস ও মাদকবিরোধী সংগঠন ‘মানস’ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি প্রফেসর অরুপ রতন চৌধুরী। 

এতে এক পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়, বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭৮ লাখ মানুষ তামাক ব্যবহার করে। প্রতি বছর আমাদের দেশে এক লাখ ২৬ হাজার মানুষ তামাক ব্যবহার জনিত কারণে মৃত্যু হয়। একটি সিগারেট ব্যবহারে একজন মানুষের ১১ মিনিট আয়ু কমে যায় এবং ধূমপান জনিত কারণে বিশ্বব্যাপী প্রতি ৪ সেকেন্ডে এক জনের মৃত্যু হয়। ফুসফুস ছাড়াও হৃদপিন্ড, মস্তিষ্ক, পাকস্থলী, রক্তনালীসহ বিভিন্ন অঙ্গ তামাক দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

সেমিনারে আরো বলা হয়, তামাক নেশা থেকে বেড়িয়ে আসার ক্ষেত্রে মানুষের ইচ্ছা শক্তি সবচেয়ে বড় অবদান রাখে। এছাড়াও সেমিনারে তামাক ছাড়ার বিভিন্ন উপায় তুলে ধরা হয়। ওষুধের ব্যবহার ছাড়াও বিভিন্ন পারিবারিক এবং সামাজিক প্রতিষ্ঠানের ভূমিকার কথা তুলে ধরা হয়। 

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষোকতায় আয়োজিত সেমিনার শেষে ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এরপর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি প্রফেসর মো. আলী হোসেন, বিশেষ অতিথি মেজর জেনারেল মো. আজিজুল ইসলাম এবং চেয়ারপার্সন কমান্ড্যান্ট মেজর জেনারেল মো. মুস্তাফিজুর রহমান ধূমপান বিষয়ে সচেতনতামূলক বক্তৃতা দেন।

অনুষ্ঠান শেষে অতিথি, বক্তা ও উপস্থাপকদের ক্রেস্ট দেয়া হয়। এ ছাড়া এএফএমসি এর পক্ষ থেকে অতিথিদের বিশেষ উপহার দেয়া হয়। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এসবি/আরএইচ