Alexa ঋণের টাকা শোধ করতে মাদক পাচার!

ঢাকা, সোমবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৪ ১৪২৬,   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

ঋণের টাকা শোধ করতে মাদক পাচার!

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৩০ ২ ডিসেম্বর ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ঋণের টাকা শোধ করতে বেছে নিয়েছিলেন মাদক পাচারের মত ভয়ানক কাজ। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। ধরা পড়েন আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর হাতে। ১৫ ঘণ্টার চেষ্টায় তার পেট থেকে বের করা হয় প্রায় ৩ হাজার পিস ইয়াবা। ধরা পড়ার পর আটক শাহীন (৩৫) নামে ওই ব্যক্তি এমনটাই জানিয়েছেন। তার বাড়ি বরগুনা জেলার সদর থানার পাঠাকাচা হেলিবানিয়া গ্রামে। বাবার নাম আলমগীর হোসেন।

সোমবার বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপস অ্যান্ড মিডিয়া) আলমগীর হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। পরে সন্ধ্যা ৫ টার দিকে বিমানবন্দর থানায় এ সংক্রান্তে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নভোএয়ারের একটি ফ্লাইট রোববার রাতে তিনি কক্সবাজার থেকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসেন। ইয়াবাগুলো হস্তান্তরের জন্য ঘোরাফেরা করছিলেন বিমানবন্দরের বাইরে।  সন্দেহজনক ভাবে ঘোরাফেরা করায় তাকে চ্যালেঞ্জ করে আর্মড পুলিশের দায়িত্বরত সদস্যরা। পরে জিজ্ঞাসাবাদে সে তার পেটে ইয়াবা থাকার কথা স্বীকার করে।

বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপস অ্যান্ড মিডিয়া) আলমগীর হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রোবাবার রাত ১০ টার সময় মো. শাহিন বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের বহির্গামী রাস্তার কাছে গাড়ি পার্কিং এলাকায় সন্দেহজনক ভাবে ঘোরাফেরা করছিল। আর্মড পুলিশের দায়িত্বরত সদস্যরা এসময় জিজ্ঞাসাবাদ করে। কিন্তু তিনি অসংলগ্ন কথা বলায় সন্দেহ হয় তাদের। পরে জিজ্ঞাসাবাদে সে তার পেটে ইয়াবা থাকার কথা স্বীকার করে। 

পরে তার পাকস্থলি থেকে দুই হাজার নয়শ’পাঁচ পিস ইয়াবা বের করতে প্রায় ১৫ ঘণ্টা সময় লাগে। আটক  ইয়াবার বাজার মূল্য প্রায় ১৪ লাখ টাকা। 

জিজ্ঞাসাবাদে আটক শাহীন জানায় কক্সবাজারের বালুখালীর জনৈক সেলিম তাকে এই ইয়াবা দেয়। টঙ্গির চেরাগ আলীর জনৈক হাবিব (বাড়ী করিমগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ) তাকে এই ইয়াবা আনার জন্য নিয়োগ করে এবং বিনিময়ে তার কাছ থেকে ধার করা ৪০ হাজার টাকা মাপ করে দেবে বলে জানায়। এই টাকা সে (শাহীন) বিদেশ যাওয়ার জন্য বছর খানেক আগে হাবিবের কাছ থেকে ধার নিয়েছিল। বর্তমানে শাহীন রাজধানীর বসুন্ধরা এলাকায় ঠিকাদারী ব্যবসা করছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসসি/এমআরকে