উত্তাপ ছড়ানো ৫ ম্যাচ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২১ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৬,   ১৫ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

রাশিয়া বিশ্বকাপ ২০১৮

উত্তাপ ছড়ানো ৫ ম্যাচ

 প্রকাশিত: ১৭:১২ ৭ জুন ২০১৮   আপডেট: ০০:৪১ ৯ জুন ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

 

ফুটবলের সব থেকে বড় আসর রাশিয়া বিশ্বকাপ ২০১৮ এর পর্দা উঠতে আর মাত্র ৬ দিন বাকী। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ২০৯ দেশের মধ্যে ৮৬৮টি ম্যাচ খেলা শেষে মূল পর্বে উঠা ৩২টি দলকে নিয়ে এবারের বিশ্বকাপ গ্রুপপর্বের খেলা শুরু হবে।

ডেইলি বাংলাদেশের বিশ্বকাপ আয়োজনে উত্তাপ ছড়াতে পারে সম্ভাব্য এমন ৫টি ম্যাচ পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হলো-

 মিসর বনাম উরুগুয়ে

উরুগুয়ে আর মিসরের এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে এবারের আসরের দুর্দান্ত সূচনা হতে পারে। স্বাগতিক রাশিয়া আর সৌদি আরবের সাথে তারা একই গ্রুপে পড়েছে। তবে তুলনামূলকভাবে এই দুই দলের পরের রাউন্ডে ওঠার সম্ভাবনা অধিক। ম্যাচের ফল যাই হোক না কেন, এই ম্যাচের ফলাফল পরের রাউন্ডে ওঠার ব্যাপারে বিশ্বকাপের শুরুতেই চাপ তৈরি করবে। মিসরের আশা-ভরসা একজনের দ্রুত ইঞ্জুরি কাটিয়ে ফিরে আসার উপর নির্ভর করছে।

মিসরের তারকা সালাহ চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে মাত্র ৩০ মিনিট খেলতে পেরেছিলেন। রিয়াল মাদ্রিদ অধিনায়ক রামোসের সাথে বল দখলের লড়াইয়ে গিয়ে ইঞ্জুরিতে পড়েন। চিকিৎসকদের ফলাফল অনুযায়ী,বিশ্বকাপের আগে তার প্রত্যাবর্তন হতে পারে। উরুগুয়ের স্ট্রাইকার লুইস সুয়ারেস সালাহের সুস্থতা কামনা করেছেন। গত বিশ্বকাপের আগে তিনি হাঁটুর ইঞ্জুরিতে ভুগেছিলেন। কোচ অস্কার তাবারেজের অধীনে লুইস সুয়ারেজ,কাভানিরা মুখোমুখি হবেন মিসরের সালাহ,তারকা মিডফিল্ডার মোহাম্মদ এলনিদের বিপক্ষে। ইসাম এল-হাদারি ৪৫ বছর বয়সে বিশ্বকাপের সবচেয়ে প্রবীণ গোলরক্ষক হিসেবে মিসরের গোলবার সামলাবেন।

 

পোল্যান্ড বনাম কলম্বিয়া

হামেস রড্রিগেজের উপর চড়ে গত বিশ্বকাপে অনেকদূর গিয়েছিল কলম্বিয়া। হামেস রড্রিগেজের বীরোচিত পারফরম্যান্সের সুবাদে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত গিয়েছিলো কলম্বিয়া। গত বিশ্বকাপের গোল্ডেন বুট জিতেছিলেন তিনি।

অন্যদিকে পোল্যান্ড তারকা রবার্ট লেভানডফস্কির উপর অনেক নির্ভরশীল। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে তিনি সর্বোচ্চ ১৬ গোল করেন। যার সুবাদে পোল্যান্ড ৮টি বাছাই পর্বের ম্যাচেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে। ইউরো ২০১৬ সালে পর্তুগালের কাছে হেরে বিদায় নেওয়া পোল্যান্ডকে এখন নিজেদের প্রমাণ করতে হবে। অবশ্য রবার্ট লেভানডফস্কি তাদের একমাত্র ভরসা নয়। গোলমুখে ওউজনিক, রক্ষণে কামিল গ্লিক ও লুকাজ পিসজজেক এবং মাঝমাঠে গ্রেগোরিজ ক্রিচোইয়াকরা আছেন। দলটি এজন্য যথেষ্ট শক্তিশালী।

অন্যদিকে কলম্বিয়ার আক্রমণভাগে রামাদেল ফ্যালকাও এর সাথে আছেন কারলোস বাক্কা, ডিফেন্সে আছেন সানচেস ও ইয়েরে মিনা। উইঙ্গার কুয়াদ্রাদোর সাথে মাঝমাঠে তারকা হামেস রদ্রিগেজের সমন্বয়ে গড়া কলম্বিয়া এবার অনেক সমীহজনক দল। দুই দলের মধ্যে এই ম্যাচ তাই ব্যক্তিগত ও দলগতভাবে দারুণ কিছু মুহূর্ত দিতে যাচ্ছে তা বলাই যায়।

 

ইংল্যান্ড বনাম বেলজিয়াম

তিউনিসিয়া ও পানামার এই গ্রুপে থাকা ইংল্যান্ড ও বেলজিয়াম একে অপরের ফলাফলের উপর যে নজর রাখবে। গ্রুপ পর্বের এই ম্যাচের উপর সম্ভাব্য গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন দল নির্বাচিত হতে পারে। সাম্প্রতিক বিশ্বকাপ গুলোয় ইংল্যান্ড বাজেভাবে ব্যর্থ হয়েছে। গত বিশ্বকাপে ইতালি,উরুগুয়ে ও কোস্টারিকার গ্রুপে সবার তলানিতে থেকে বিদায় নেয় তারা। ব্যর্থতার পুনরাবৃত্তি ঘটে ২০১৬ ইউরোতে আইসল্যান্ডের কাছে হেরে বাদ পড়ে।

কাগজে কলমে গ্যারেথ সাউথগেটের দলটি এবার বেশ শক্তিশালী। দলটির নক-আউট পর্বেও প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার সামর্থ্য আছে। ইপিএল এর অনেক সেরা তারকা খেলোয়ার নিয়ে দলটি গঠিত। অন্যদিকে বেলজিয়ামকে বলা হচ্ছে এবারের বিশ্বকাপের কালো ঘোড়া। গত বিশ্বকাপ ও ইউরো ২০১৬ এর কোয়ার্টার ফাইনালিস্ট দলটি চাইবে এবার আরও বড় কিছু করে দেখাতে। কর্তোয়া,ডি ব্রুইন, লুকাকু, ইডেন হ্যাজার্ডদের নিয়ে গড়া দলটি সব দিক দিয়ে ভারসাম্যপূর্ণ। পর্তুগালের সাথে প্রীতি ম্যাচে ইনজুরিতে পড়ে ভিন্সেন্ট কোম্পানির বিশ্বকাপে খেলা অনশ্চিত হয়ে পড়েছে। তবে দলের মধ্যে যে একটি দারুণ ম্যাচ হতে যাচ্ছে তার আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

 

আর্জেন্টিনা বনাম ক্রোয়েশিয়া

নাইজেরিয়া আর আইসল্যান্ডের সাথে গ্রুপ ডি এর এক কঠিন গ্রুপেই পড়েছে আর্জেন্টিনা ও ক্রোয়েশিয়া। বাছাই পর্বের গ্রুপে নাইজেরিয়ার সাথে ছিল ক্যামেরুন আর আলজেরিয়ার মতো দল। তাদেরকে পেছনে ফেলে নাইজেরিয়া গ্রুপটি থেকে প্রথম হয়।  অন্যদিকে ২০১৬ ইউরোতে আইসল্যান্ড দলটি যে কি ধাতুতে গড়া তা দেখিয়ে দিয়েছে। ক্রোয়েশিয়া দলটিতে এক ঝাঁক প্রতিভাবান খেলোয়াড় রয়েছে। লুকা মদ্রিচ,মানজুকিচ,পেরিসিচ,রাকিতিচ, কোভাসিচরা ভেট্রেনিদের শক্তির জানান দেয়। ক্রোয়েশিয়া ২০১৬ ইউরোতে স্পেনকে হারিয়েছিল। যদিও পরের রাউন্ডে পর্তুগালের কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল।

২০১৪ সালের ফাইনালিস্ট আর্জেন্টিনার দলটিতে আছেন মেসি,দিবালা,ডি মারিয়া, আগুয়েরো,হিগুয়েনের মতো তারকারা। কিন্তু রক্ষণে তারা এবার যথেষ্ট দুর্বল। গোলরক্ষক রোমেরো হাঁটুর ইনজুরির কারণে এবার বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেছেন। এই ম্যাচটিতে যেকোনো কিছু ঘটতে পারে। মূলত খেলাটি হবে ক্রোয়েশিয়ার দুর্দান্ত মাঝমাঠ আর আর্জেন্টিনার মেসিদের আক্রমণভাগের মধ্যে।

 

পর্তুগাল বনাম স্পেন

সম্ভবত গ্রুপ পর্বের সবচেয়ে সবচেয়ে বড় ম্যাচ এটি। পর্তুগাল বনাম স্পেন শুধু একটি ম্যাচের থেকেও বড় কিছু। এটি দুই দলের ‘আঞ্চলিক দ্বন্দ্ব’ কোটি কোটি মানুষ উপভোগ করবে।

দুটি দলের জন্যই এই বিশ্বকাপ অনেক বড় কিছু। স্পেন কোচ লুপতেগুইয়ের মাধ্যমে তাদের হারানো গৌরব ফিরে পেতে চাইবে। অন্যদিকে পর্তুগাল ২০১৬ ইউরো জয়ের পুনরাবৃত্তি করতে চাইবে। দুই দলই গ্রুপের অন্য দুই দল ইরান এবং মরক্কোর বিপক্ষে ফ্যাবারিট হিসেবে মাঠে নামবে। এজন্য ম্যাচটির ফলাফলের উপর গ্রুপে কে চ্যাম্পিয়ন হবে তা অনেকটাই নির্ভর করবে। পর্তুগালের মূল শক্তি তাদের রক্ষণভাগ। আক্রমণে রোনালদোর উপর মূল দায়িত্ব থাকবে। অন্যদিকে স্পেনের রক্ষণ ও মাঝমাঠ এই আসরের অন্যতম সেরা। স্পেন বনাম পর্তুগাল ম্যাচটি ফুটবলপ্রেমীদের জন্য বড় কিছু নিয়েই অপেক্ষা করছে।

 

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস

Best Electronics