Alexa ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ধর্মঘট শুরু

ঢাকা, সোমবার   ২২ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ৭ ১৪২৬,   ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪০

বিনা চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু 

ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ধর্মঘট শুরু

রংপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:২০ ১২ মার্চ ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা মঙ্গলবার দুপুর থেকে নিরাপত্তাসহ পাঁচ দফা দাবিতে অনিদৃষ্টকালের জন্য ধর্মঘট শুরু করেছে। হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় এক রোগী মারা যাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র্র করে পাল্টা অভিযোগের ভিত্তিতে তারা এই ধর্মঘট শুরু করে।

ইন্টার্ন চিকিৎসকদের অভিযোগ, মঙ্গলবার ভোরে হৃদরোগ বিভাগে নগরীর মাহিগজ্ঞ এলাকার রহিমা খাতুন নামে এক রাগী ভর্তি হবার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলে তার স্বজনরা ইর্ন্টান চিকিৎসক ডা. হালিমা ও ডা. আলেয়াকে লাঞ্ছিত করে। পরে তারা উত্তেজিত হয়ে বহিরাগতদের সঙ্গে নিয়ে ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের কার্যালয়ের আসবাবপত্র ভাংচুর করে।   

এ ঘটনার প্রতিবাদে ও পাঁচ দফা দাবি আদায়ে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা হাসপাতালে অনিদৃষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করেন। তাদের দাবির মধ্যে রয়েছে, পরবর্তি ২৪ ঘন্টার মধ্যে হাসপাতাল ক্যাম্পাসে স্থায়ী পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন, দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা, জরুরি বিভাগে নিরাপত্তা বাড়ানো, হোস্টেলে নিরাপত্তা ও চিকিৎসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। 

হৃদরোগ বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসকদের অবহেলায় রহিমা খাতুনের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার নাতনী সালমা আলী। তিনি বলেন, তার দাদী রহিমা  খাতুন মঙ্গলবার ভোরে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কার্ডিওলজি বিভাগে ভর্তি করার পর কোনো চিকিৎসককে সেখানে পাওয়া যায়নি। 

এ সময় দুজন নারী ইন্টার্ন চিকিৎসক ডক্টরস ডিউটী রুমে অবস্থান করলেও তাদের বার বার অনুরোধের পরও তারা আসেনি। এভাবে দেড় ঘন্টা কার্ডিওলজি বিভাগে বিনা চিকিৎসায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় স্বজনরা চিকিৎসকদের আচরনে ক্ষোভ প্রকাশ করে। এ নিয়ে তাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। 

এ সময় দুই চিকিৎসক তাদের দেখে নেবার হুমকি দেয়। পরে তারা তাদের দাদীর মরদেহ নিয়ে বাড়িতে চলে আসে। তারা কোন কার্যালয় ভাংচুর বা হামলা করেন নাই বলে দাবি করেন। বরং দুই ইন্টার্ন চিকিৎসক অভিযোগ থেকে বাঁচতে মিথ্যা গল্প তৈরি করছেন।

ধর্মঘটের কথা স্বীকার করে হাসপাতাল পরিচালক ডা. অজয় রায় বলেন, দাবি বাস্তবায়ন করার জন্য আন্দোলনকারীদের আশ্বাস দেয়া হয়েছে। পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখতে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। 

তবে ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডা. আবরাবার জিসান বলেন, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস