Exim Bank Ltd.
ঢাকা, মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

ইউপিডিএফকে নিষিদ্ধের দাবি

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
ইউপিডিএফকে নিষিদ্ধের দাবি
ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ইউপিডিএফ রাষ্ট্রদ্রোহী সংগঠন, আইন করে তাদের নিষিদ্ধ করা হোক। জাতীয় দিবসগুলোতে কালো পতাকা উত্তোলন করার মাধ্যমে প্রমাণ করে ইউপিডিএফ রাষ্ট্রদ্রোহী।

শনিবার সকালে খাগড়াছড়িতে মানবেন্দ্র নারায়ন (এমএম লারমার) এর স্মরণ সভায় এ দাবি জানান জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা সমর্থিত নেতাকর্মীরা।

এদিন খাগড়াছড়িতে মানবেন্দ্র নারায়ন (এমএম লারমার) ৩৫তম মৃত্যু বার্ষিকী পালন করা হয়।

এমএম লারমা সমর্থীত জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক প্রফুল­ কুমার চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, জেএসএস’র কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক বিভু রঞ্জন চাকমা।

সভার শুরুতে মানবেন্দ্র নারায়ণ ‘এমএম লারমাসহ’ সশস্ত্র সংগ্রামে নিহতদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন ও শোক প্রস্তাব পাঠ করা হয়।

তুষার চাকমার সঞ্চালনায় এতে, জেএসএস’ কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সুধাকর ত্রিপুরা, ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক সন্তোষিত চাকমা বকুল, সমাজসেবক রবি শঙ্কর তালুকদার, কেন্দ্রীয় যুব সমিতির সংগঠনিক সম্পাদক দীপু চাকমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপির) কেন্দ্রীয় সভাপতি সুমেধ চাকমা, জেএসএস’র খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি অরাধ্যাপাল খীসা, সাধারণ সম্পাদক সিন্ধু কুমার চাকমা বক্তব্য রাখেন।

স্মরণ সভায় বক্তারা বলেন, জুম্ম জাতির অধিকার আদায়ে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামকে বুলণ্ঠিত করতে ১৯৮৩ সালে যারা মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমাকে হত্যা করা হয়েছিল। জুম্ম জনগনের মহান এ নেতাকে যারা হত্যা করেছিল তারা এখনো নানা ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের প্রতিহত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। দীর্ঘ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর পার্বত্যঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্টায় পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি সম্পাদিত হলেও তা এখনো পুরোপুরি বাস্তবায়ন না হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন তারা।

১৯৮৩ সালে খাগড়াছড়ি জেলার ভগবান টিলা এলাকায় অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে আট সহযোদ্ধাসহ নিহত হন মানবেন্দ্র নারায়ন (এমএন লারমা)। সে থেকে প্রতি বছর ১০ নভেম্বর দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করে আসছে, পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি জনগণ।

মানবেন্দ্র নারায়ন লারমা ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর নির্বাচিত প্রথম সংসদ সদস্য। তিনি জাতীয় সংসদে বাংলাদেশের সংবিধানে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর সাংবিধানিক স্বীকৃতির দবিতে জাতীয় সংসদ থেকে ওয়াক আউট করেন। এরপর থেকে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য ১৯৭২ সালের ৭ মার্চ তার নেতৃত্বে রাঙ্গামাটিতে গঠিত হয় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি।

পরবর্তীতে ১৯৭৩ সালের ৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ির ইটছড়িতে গঠিত হয় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সশস্ত্র সংগঠন ‘শান্তি বাহিনী’। যার পরিসমাপ্তি ঘটে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর সরকারের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ

আরোও পড়ুন
সর্বাধিক পঠিত
পুলিশের গাড়ি ভাঙায় ছাত্রদল নেতা বহিষ্কার
পুলিশের গাড়ি ভাঙায় ছাত্রদল নেতা বহিষ্কার
তাহলে কি এখনো তারা স্বামী-স্ত্রী?
তাহলে কি এখনো তারা স্বামী-স্ত্রী?
আবারো মা হচ্ছেন কারিনা!
আবারো মা হচ্ছেন কারিনা!
ভাবীর শরীরে দেবরের ‘আপত্তিকর’ স্পর্শ
ভাবীর শরীরে দেবরের ‘আপত্তিকর’ স্পর্শ
ফরজ গোসলের সঠিক নিয়ম
ফরজ গোসলের সঠিক নিয়ম
নির্বাচন একমাস পেছানোর আশ্বাস দিয়েছে ইসি: ড. কামাল
নির্বাচন একমাস পেছানোর আশ্বাস দিয়েছে ইসি: ড. কামাল
কাজলকে ‘জোর করে’ চুমু, ছিল অশ্লীল আচরণ!
কাজলকে ‘জোর করে’ চুমু, ছিল অশ্লীল আচরণ!
বিএনপিতে যোগ দিলেন সৈয়দ আলী
বিএনপিতে যোগ দিলেন সৈয়দ আলী
‘হট’ ভিডিওতে ভাইরাল পুনম
‘হট’ ভিডিওতে ভাইরাল পুনম
বাড়িতে বাবার লাশ, ছেলে পরীক্ষার হলে
বাড়িতে বাবার লাশ, ছেলে পরীক্ষার হলে
মুম্বাইতে ‘তারা’
মুম্বাইতে ‘তারা’
দাদি হলেন মমতাজ
দাদি হলেন মমতাজ
মির্জা ফখরুলকে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ছাত্রলীগের
মির্জা ফখরুলকে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ছাত্রলীগের
লাল শাড়িতে চীনে ঐশী!
লাল শাড়িতে চীনে ঐশী!
‘নৌকার মনোনয়ন পাবে জরিপে অগ্রগামীরা’
‘নৌকার মনোনয়ন পাবে জরিপে অগ্রগামীরা’
১৬ বছরেই মা হয়েছেন সানিয়া!
১৬ বছরেই মা হয়েছেন সানিয়া!
কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? জানালেন ড. কামাল
কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? জানালেন ড. কামাল
নৌকার মাঝি হতে চান প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী
নৌকার মাঝি হতে চান প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী
‘নির্বাচনে দায়িত্ব পেলে নিরপেক্ষ ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ করবে সেনাবাহিনী’
‘নির্বাচনে দায়িত্ব পেলে নিরপেক্ষ ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ করবে সেনাবাহিনী’
যৌনদাসী বানিয়ে অভিনেত্রীদের...
যৌনদাসী বানিয়ে অভিনেত্রীদের...
শিরোনাম:
৩০০ আসনেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশনা এরশাদের ৩০০ আসনেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশনা এরশাদের মহিলা ফুটবল দলের সঙ্গে ঢাকা ব্যাংকের ছয় বছরের চুক্তি মহিলা ফুটবল দলের সঙ্গে ঢাকা ব্যাংকের ছয় বছরের চুক্তি গুলশানে জাপার মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার চলছে; জাতীয় পার্টি যে জোটে থাকবে তারাই ক্ষমতাই আসবে: রুহুল আমিন হাওলাদার গুলশানে জাপার মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার চলছে; জাতীয় পার্টি যে জোটে থাকবে তারাই ক্ষমতাই আসবে: রুহুল আমিন হাওলাদার এবার সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে; কোনো পর্যবেক্ষণ সংস্থা দায়িত্ব পালনে অনিয়ম করলে ব্যবস্থা : ইসি সচিব এবার সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে; কোনো পর্যবেক্ষণ সংস্থা দায়িত্ব পালনে অনিয়ম করলে ব্যবস্থা : ইসি সচিব টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২ টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২ তৃতীয় দিনের মতো বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার চলছে তৃতীয় দিনের মতো বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার চলছে