ইউএনও সোহানার হস্তক্ষেপে বেঁচে গেল চার স্কুলছাত্রী

ঢাকা, সোমবার   ২৭ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৬,   ২২ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

ইউএনও সোহানার হস্তক্ষেপে বেঁচে গেল চার স্কুলছাত্রী

রাজৈর(মাদারীপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৩৬ ১৮ এপ্রিল ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলায় একইদিনে ইউএনওর হস্তক্ষেপে চারটি বাল্যবিয়ে বন্ধ হয়েছে। মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে দুই কনের অভিভাবককে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড হয়েছে। অন্য দুই কনের বাবা মুচলেখা দিয়ে রেহাই পেয়েছেন। 

বুধবার বিকেলে ইউএনও সোহান নাসরিন পাইকপাড়া ইউপির নয়াকন্দি কাশিমপুর গ্রামের ফারুক খানের মেয়ে এবং স্থানীয় মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্রী স্মৃতির বিয়ের খবর পেয়ে অভিযান চালায়। মেয়ের বিবাহ বন্ধ রাখবে মর্মে মুচলেখা রেখে বাবাকে ছেড়ে দেয়া হয়।
  
অপরদিকে উপজেলার ইশিবপুর গ্রামের মজিবর কারিকরের কন্যা ও ইশিবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী লিজা আক্তারের বিয়ের দিন ধার্য ছিল। তাও বন্ধ করে মুচলেখা রেখে বাবাকে ছেড়ে দেয়া হয়। 

উপজেলার আমগ্রাম ইউপির মনি মোহন বৈদ্যর কনে নবম শ্রেণির ছাত্রী তিথীর বিয়ের আয়োজন চলছিল। সেসময় ইউএনও পুলিশ নিয়ে সেখানেও হাজির হন। বিবাহ বন্ধ করে কনের বাবাকে এবং একই গ্রামের হরিপদ ওঝার কনে দশম শ্রেণির ছাত্রী দোলা ওঝার বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল।

খবর পেয়ে ইউএনও সেখানেও হাজির হয়ে কনে ও কনের বাবাকে আটক করে রাতে উপজেলায় নিয়ে আসে এবং ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে উভয় অভিভাবককে পাঁচ হাজার টাকা করে ১০ হাজার টাকার জরিমানা করেন। সেই সঙ্গে ১৮ বছর পার না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবে না এ মর্মে ছেড়ে দেয়া হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম

Best Electronics