Alexa অ্যামাজনের কয়েকটি ভয়ঙ্কর প্রাণী 

ঢাকা, সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ১ ১৪২৬,   ১৬ মুহররম ১৪৪১

Akash

অ্যামাজনের কয়েকটি ভয়ঙ্কর প্রাণী 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৩৮ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১২:৩১ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

অ্যামাজনের একটা বিরাট অংশ দাবানলে পুড়ে ছারখার হয়ে গেছে। মারা পড়েছে বহু প্রাণী। যার মধ্যে বিরল প্রজাতি প্রাণীও রয়েছে। এই অ্যামাজনের কয়েকটি ভয়ঙ্কর প্রাণী সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

গ্রিন অ্যানাকোন্ডা: বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাপ গ্রিন অ্যানাকোন্ডা। অ্যামাজন নদীতেই এদের দেখা মেলে। এদের দৈর্ঘ্য ৩০ ফুট পর্যন্ত হয়। ওজন ২৫০ কেজিরও বেশি।

ক্যান্ডিরু: একটি ছোট প্রজাতির রক্তপিপাসু মাছ এটি। এদের ভ্যাম্পায়ার ফিশ-ও বলা হয়। বলিভিয়া, ব্রাজিল, কলম্বিয়া, পেরুতে পাওয়া যায়।

পিরানহা: রেড বেলি পিরানহা খুবই ভয়ানক। অ্যামাজন নদীর ত্রাস বলা হয় এই মাছকে। এরা ঝাঁক বেঁধে ঘুরে বেড়ায়। শিকার করে দলবদ্ধ ভাবে। এদের দাঁতে এত ধার যে নিমেষে বড় কোনও পশুকে খেয়ে ফেলতে পারে।

অরপাইমা: বিশ্বের স্বাদু পানির বৃহত্তম মাংসাশী মাছ অরপাইমা। পিরারুকু নামেও পরিচিত এরা। দৈর্ঘ্যে প্রায় ১০ ফুট হয়।  

বুল শার্ক: সাধারণত হাঙরদের সমুদ্রেই দেখা যায়। কিন্তু অ্যামাজন নদীতে বুল শার্কের দেখা পাওয়া যায়। এদের দৈর্ঘ্য প্রায় ১১ ফুট মত হয়। ওজন ৩০০ কেজিও হতে পারে।

দ্য পাকু: পিরানহার বড় ভাই বলা হয় দ্য পাকুকে। মানুষের মত দাঁতই এদের বড় পরিচয়। এরা সর্বভুক।

ইলেকট্রিক ইল: এরা ক্যাটফিশ প্রজাতির। দৈর্ঘ্যে প্রায় সাড়ে আট ফুটের মত হয়। এদের শরীরে ৬০০ ভোল্টের মত বিদ্যুত্ উত্পন্ন হয়।

ব্ল্যাক কেমান: অ্যামাজন নদীর রাজা বলা হয় ব্ল্যাক কেমানকে। দৈর্ঘ্যে প্রায় ২০ ফুট মতো হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে