Alexa আফগানদের কাছে সিরিজ হার, কিন্তু কেন?

ঢাকা, সোমবার   ১৯ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৪ ১৪২৬,   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

আফগানদের কাছে সিরিজ হার, কিন্তু কেন?

 প্রকাশিত: ১৭:৪৬ ৮ জুন ২০১৮   আপডেট: ০০:৩৬ ৯ জুন ২০১৮

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

 

বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের সেই দিনগুলোর কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে, যখন বাংলাদেশ একের পর এক হেরে অভিজ্ঞতা অর্জন করত। এখনতো সময় বদলেছে , ক্রিকেট দল কিভাবে জয় করতে হয় সেটা শিখেছে। তাহলে কেন আফগানদের কাছে এতটা বাজেভাবে টাইগারদের হার।

ভারতের দেরাদুনে সদ্য শেষ হওয়া টি টোয়েন্টি সিরিজে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৩-০ তে হোয়াইটওয়াশ হয়ে সিরিজ হেরেছে টাইগাররা। 

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের এমন দৈন্যদশা যেন কাটছেই না।  হারের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না টাইগাররা। 

মাশরাফির হাত ধরে সেই হারের বৃত্ত থেকে একদিন বেড় হয়ে এসেছিল টাইগাররা। ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে চমক দেখায় তারা। এরপর ঘরের মাঠে পাকিস্তান ভারত দক্ষিণ আফ্রিকাকে নাস্তানাবুদ করে সিরিজ জিতে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে মাশরাফির বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ দল

কোথায় হারিয়ে গেল সেই সোনালী দিন। সদ্য সমাপ্ত টিটোয়েন্টি সিরিজে আফগানদের কাছেই কেন হোইট ওয়াশ হতে হবে? তাহলের এই হারের কারন কি? ক্যাপ্টেনন্সি নাকি কোচ?

সকলের সামনে একটাই প্রশ্ন কেন হারের বৃত্তে টাইগাররা ?

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নবাগত দল হলেও টি টোয়েন্টি ফরম্যাটে আফগানিস্তান বেশ শক্তিশালী। বাংলাদেশ ক্রিকেট ঐতিহ্য, অবকাঠামো ও সার্বিক ব্যবস্থাপনায় আফগানদের চেয়ে অনেক সমৃদ্ধ। তাই র‍্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকলেও আফগানদের বিপক্ষে এমন পরাজয় বাংলাদেশীদের জন্য চরম হতাশার। আর শেষ ম্যাচে এত কাছে এসেও দলের হার দুঃখজনক। এভাবে বাংলাদেশের হার কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারছেন না ক্রিকেট প্রেমীরা।

সিরিজের প্রথম দুইটি ম্যাচে বাজে পারফরম্যান্স করেই হেরেছিল বাংলাদেশ। তৃতীয় ম্যাচে ভাল করলেও শেষ বলে হার। তাতে হোয়াইটওয়াশ হতে হয়েছে টাইগারদের।

আফগানদের বিপক্ষে বাংলাদেশের বোলিং, ব্যাটিং, ফিল্ডিং তিন বিভাগই ছিল এলোমেলো। আফগান স্পিনার এক রশিদ খানের কাছেই যেন পুরো টাইগারা ব্যর্থ। প্রতিটি ম্যাচেই তার চারটি ওভারই মূলত ধ্বসিয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটিংলাইনকে। রশিদের দুর্দান্ত বোলিংয়ের সঙ্গে মুজিব জাদরান ও অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবীর কেমিস্ট্রি তো আছেই। সবকিছু মিলিয়ে একটি টেস্ট খেলুড়ে দেশ হয়েও আফগানিস্তানের নবীন ক্রিকেটারদের কাছে পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ। রশিদ সর্বোচ্চ ৮ উইকেট নিয়েছেন। নবী দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪ ও মুজিব নিয়েছেন ২ উইকেট। রান দেয়ার বেলাতেও তারা ছিলেন অত্যন্ত কৃপণ। রশিদের ইকোনমি রেট ৪.৪৫, নবী ও মুজিবের ৫।

ওয়ানডেতে টাইগারদের ভালো ধারাবাহিকতা থাকলেও সর্বশেষ বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সিরিজে জয় পেয়েছে ২০১৬ সালে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে সেই সিরিজে ২-১এ সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। এরপরে ইংল্যান্ডের কাছে হার,নিউজিল্যন্ডের কাছে হোয়াইটওয়াশ শেষ দক্ষিণ আফ্রিকাতেও হোয়াইটওয়াশ।

আর ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে তো বাংলাদেশের চোখে পড়ার মত কোনো সাফল্যই নেই। র‍্যাঙ্কিংয়ের দিকে তাকালেও সবার পেছনে বাংলাদেশ। চলতি বছরের শুরুতেই ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল টাইগাররা।

সর্বশেষ নিদাহাস টি টোয়েন্টি ট্রফির ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে শেষ বলে হারের স্মৃতি। তারও আগে ২০১২ সালের এশিয়া কাপ ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই রানে হেরেছিল বাংলাদেশ। ম্যাচের একেবারে শেষ ওভারে গিয়ে জয় বের করে আনা সহজ নয়।

কিন্তু বাংলাদেশ নিয়মিতই এমন পরিস্থিতিতে হারছে। তখন মনে পড়ে যায় এপর্যন্ত ক্রিকেটের ভাগ্য বিড়ম্বিত দল দক্ষিণ আফ্রিকার কথা। কারণ এসব হিসেব করে দেখলে দেখা যাবে যে, ফাইনালে এসে না জেতার সবচেয়ে বেশি রেকর্ড আছে দক্ষিণ আফ্রিকার। সে কাতারে এখন বাংলাদেশ।

সাকিব

আবারও জয়ের খুব কাছে গিয়ে এমন হারের কারণ ব্যাখ্যা দিয়েছেন সাকিব।  সাকিবের মতে এটা একটা মানসিক বাধা যা টাইগাররা অতিক্রম করতে পারছে না,এই উত্তর দেওয়া আমার জন্য কঠিন হবে। এমন পরিস্থিতিতে আমি কখনও ব্যাট বা বল করিনি। আমি মনে করি ব্যাটসম্যান বা বোলাররা এটার বর্ণনা ভালো দিতে পারবে। আমার মতে এটা মানসিক বাধা,যেটা এখন পর্যন্ত আমরা জয় করতে পারিনি।

আচ্ছা তাহলে কি ধরে নিতে হবে যে বাংলাদেশে একজন রশিদ খানের খুব বেশি অভাব? নাকি একজন সফল ক্যাপটেনের? কিন্তু ওদিকে বিসিবি সভাপতি কিন্তু বলছেন অন্য কথা। পাপন বলেন উইকেটে ব্যাটসম্যানদের সেট হয়েও ফিরে আসা,সিনিয়র খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স সব কিছু ভাবাচ্ছে ।যখনই মনে হচ্ছে আমরা সেট হচ্ছি,বড় স্কোরের দিকে যাচ্ছে দল, তখনই উইকেট থ্রো করে দিয়ে আসছি।

টাইগারদের পারফরম্যান্সের এসব নানা দিক নিয়ে ভাবনা থেকেই দলের মধ্যে সমস্যার আঁচ পাচ্ছেন তিনি। তিনি মনে করেন দলের  কোনো সমস্যা নিশ্চয়ই হচ্ছে। আমরা যে দল চিনি এটা সেই দলের মতো না। নিশ্চয়ই সমস্যা আছে দলে।

কিন্তু এই সমস্যাটা কেন হচ্ছে? এটি ভাবতে গিয়ে হাতুরুসিংহের কড়া শাসন থেকে টাইগারদের মুক্তি পাওয়াকেই একটা কারণ মনে হচ্ছে পাপনের।আসলে এটা খুব হতাশজনক। নিদাহাস ট্রফির আগে বাংলাদেশে যে সিরিজটা হলো,একেবারে সেটির পুনরাবৃত্তি দেখেছি। একটা জিনিস হতে পারে। যেহেতু হাতুরু সিদ্ধান্ত একা নিজে নিত আগে। ওদের একদম কঠোর নিয়ম কানুন মেনে চলা। এইরকম একটা পরিবেশ থেকে হুট করে মুক্ত একটা পরিবেশ পেলে যা হয় তাতে করে হয়তো সমস্যা হতেও পারে।

পাপন

তাহলে বিসিবি প্রধানের ভাষ্য মতে একজন কড়া কোচেরই কি এই মুহুর্তে দরকার টাইগারদের?

টাইগারদের জন্য নিয়োগ করা হয়েছে ইংলিশ কোচ স্টিভ রোডসকে। নতুন কোচের আশা বাংলাদেশকে বিশ্বকাপের ফাইনালে নিয়ে যাওয়া।

তাহলে কি এই অবস্থা থেকে টাইগারদের ফিরাতে পারবেন ইংলিশ কোচ?

জুলাই মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে একটি পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। সেখান থেকে ফিরেই এশিয়া কাপের প্রস্তুতি। আর তারপরেই বিশ্বকাপের মত একটি বড় আসর। তার আগে এমন হার পরবর্তী সিরিজ গুলোতেও টাইগারদের উপর চাপ তৈরি করবে।

বলা যায় বিশ্বকাপের আগে এমন সিরিজগুলোর জয় টাইগারদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের জন্ম দেবে। কিন্তু একের পর এক হার তাদের আত্মবিশ্বাসের জায়গাটাকে আরো দুর্বল করে দিচ্ছে।

কিন্তু নতুন কোচের স্বপ্ন আর টানা ব্যর্থতা নিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বকাপে কতটা ভালো করবে তাই এখন দেখার অপেক্ষা।

ডেইলি বাংলাদেশ, সালি/আরএস

Best Electronics
Best Electronics

শিরোনাম

শিরোনামকুমিল্লার বাগমারায় বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নারীসহ নিহত ৭ শিরোনামবন্যায় কৃষিখাতে ২শ’ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হবে না: কৃষিমন্ত্রী শিরোনামচামড়ার অস্বাভাবিক দরপতনের তদন্ত চেয়ে করা রিট শুনানিতে হাইকোর্টের দুই বেঞ্চের অপারগতা প্রকাশ শিরোনামচামড়া নিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সমাধানে বিকেলে সচিবালয়ে বৈঠক শিরোনামডেঙ্গু: গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১৭০৬ জন: স্বাস্থ্য অধিদফতর শিরোনামডেঙ্গু নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন দুপুরে আদালতে উপস্থাপন শিরোনামডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমছে: সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক শিরোনামইন্দোনেশিয়ায় ফেরিতে আগুন, দুই শিশুসহ নিহত ৭ শিরোনামআফগানিস্তানে বিয়ের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, নিহত বেড়ে ৬৩