ঢাকা, শনিবার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,   ফাল্গুন ১০ ১৪২৫,   ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪০

আপনার ফ্রিজ সুরক্ষিত রাখতে চান? জেনে নিন কিছু টিপস

তাইয়্যেবা ইসলাম ইমা ডেইলি-বাংলাদেশ

 প্রকাশিত: ১৫:০৭ ৬ জুলাই ২০১৮   আপডেট: ১৫:২৩ ৬ জুলাই ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ফ্রিজ রান্নাঘরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি ইলেকট্রনিক যন্ত্র। একটি ফ্রিজ ছাড়া শহরের যান্ত্রিক জীবনে চলা অসম্ভব। শহরের পাশাপাশি গ্রামেও ফ্রিজের ব্যবহার বাড়ছে। এটি অনেকদিন খাদ্য সংরক্ষণে সহায়তা করে। খাদ্যমান, বর্ণ, গন্ধ অটুট রাখে। দৈনন্দিন খাদ্য সংরক্ষণে ফ্রিজের ব্যবহার রয়েছে।

ফ্রিজ বড় বা ছোট যেকোন আকার হতে পারে। ফ্রিজের আকার যাই হোক না কেন, আপনার এর যত্ন নেয়া প্রয়োজন কারণ এটি আপনার খাদ্যের যত্ন নেয় এবং আপনার জীবনকে সহজ এবং সুবিধাজনক করে তোলে। কল্পনা করুন যদি রেফ্রিজারেটরের অস্তিত্ব না থাকতো, তবে আপনাকে দিনে অন্তত দুবার রান্না করে খেতে হতো! এখানে এমন কিছু টিপস আছে যা আপনার ফ্রিজের যত্ন নিতে সাহায্য করবে ও ফ্রিজকে সুরক্ষিত রাখবে।

অতিরিক্ত চাপ এড়াতেঃ
যদি আপনি ফ্রিজে অতিরিক্ত গরম খাদ্য সংরক্ষণ করুন তবে আপনার ফ্রিজ ঠাণ্ডা হতে বেশি সময় নিবে। এটি (আপনার সরঞ্জামের) দক্ষতা প্রভাবিত করতে পারে কারণ গরম খাবার সংরক্ষণ করলে আপনার ফ্রিজ অতিরিক্ত চাপ বহন করতে না পেরে সহজে ঠাণ্ডা হয় না। ফ্রিজে খাদ্য স্থানান্তরিত করার পূর্বে ফ্যানের বাতাসে একে অবশ্যই ঠাণ্ডা করে নিতে হবে। গরম খাদ্য সংরক্ষণে ফ্রিজের দক্ষতাও কমে যায়।

নিয়মিত আপনার ফ্রিজ পরিষ্কার করুনঃ
ফ্রিজ এমন একটি জিনিস যা দৈনন্দিন কাজে ব্যবহার আবশ্যিক। যে ফ্রিজ আপনার খাবারের যত্ন নেয় তারও চাই কিছু বাড়তি যত্ন। একমাস বা দুইমাসে একবার হলেও আপনার ফ্রিজ পরিষ্কার করা জরুরি। নিয়মিত খাদ্য সংরক্ষণে ফ্রিজে ময়লা জমে, খাদ্যের দূর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। নানা রকম জীবাণু সৃষ্টি হয়। তাই নিয়মিত এটি মুছামুছি ও পরিষ্কার করা উচিত। যখন ফ্রিজটি পরিষ্কার করা হয় তখন প্রত্যেকটি আইটেমকে আলাদা রাখা উচিত। ফ্রিজের প্রতিটি অংশ খোলে আলাদা করে পরিষ্কার করা উচিত। তারপর পুরো ফ্রিজকে ভালোভাবে ক্লিনারের সাহায্যে পরিষ্কার করুন। ফ্রিজের ভিতরগুলি পরিষ্কার করুন একটি নরম স্পঞ্জ ব্যবহার করুন যাতে ফ্রিজে লেগে থাকা বাড়তি পানি শোষণ করে এবং বহিরাগত পৃষ্ঠগুলিও মুছতে ভুলবেন না।

দূর্গন্ধ এড়াতেঃ
ফ্রিজে খাদ্য সংরক্ষণের সময় অবশ্যই খাবার ঢাকনা দিয়ে ঢেকে নিবেন। এতে খাবারের গন্ধ পুরো ফ্রিজে ছড়িয়ে পড়ে না। এছাড়া আপনি বেকিং সোডা একটি খোলা পাত্রে রেখে আপনার ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। এটা সত্যিই দারুণ কার্যকরী। এটি ফ্রিজে জমে থাকা দূর্গন্ধ দূর করে। এছাড়া ফ্রিজে লেবুর টুকরো কেটে রাখতে পারেন, এতে ফ্রিজ সুরভিত থাকবে।

কিভাবে খাদ্য সংরক্ষণ করবেনঃ
একটি সুন্দর করে সাজনো, গোছানো, ফ্রিজ দেখতে কে না পছন্দ করে। আপনি যে উপায়ে খাদ্য সংরক্ষণ করবেন তা বিবেচনা করুন।ছোট ছোট কন্টেইনারে বা বক্সে খাদ্য সংরক্ষণ করুন। এতে ফ্রিজে  কম জায়গা দখল হবে। জুস বা সস জাতীয় খাদ্য বোতলে সংরক্ষণ করুন। ফ্রিজের নিচের দিকে ফলমূল ও সবজি সংরক্ষণের জন্য আলাদা বক্স আছে। এতে ফলমূল ও শাকসবজি পলিথিনে মুড়িয়ে সংরক্ষণ করুন।

কেন আপনার ফ্রিজে  খাদ্য নষ্ট হয়ে যায়ঃ
কখনো যদি খেয়াল করেন আপনার ফ্রিজে খাদ্য নষ্ট হয়ে পড়ছে এমন সমস্যা হয়, তবে এটি বেশ কয়েকটি কারণে হতে পারে। সবচেয়ে সাধারণ কারণ হলো আপনার ফ্রিজ সঠিকভাবে শীতল হয় না বা খাবারটি সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা হয় না। বারবার ফ্রিজের দরজা খোলা হলে এ সমস্যাটি হতে পারে। ফ্রিজের শীতল অংশ দরজা দ্বারা বদ্ধ থাকে। বারবার ফ্রিজের দরজা খুললে ভেতরের ঠান্ডা বায়ু বাইরে বের হয়ে যায়। তাই ফ্রিজের দরজা বারবার খোলা থেকে বিরত থাকতে হবে।

খাদ্যের ধরণ বুঝে সংরক্ষণঃ
পনির ও মাখন জাতীয় খাদ্য  ফ্রিজের উপরের অংশে (বরফ সংরক্ষনের স্থানে) সংরক্ষণ করুন।দুধ জ্বাল দিয়ে সংরক্ষণ করুন। কাঁচা দুধে ব্যাকটেরিয়া হতে পারে। ডিম পরিষ্কার করে ধুয়ে সংরক্ষণ করুন। এতে ময়লা কম হবে।না ধুয়ে ডিম সংরক্ষণ করলে ফ্রিজে দূর্গন্ধ ছড়ায়। মাংস ও মাছের মত পচনশীল খাবার সংরক্ষণ করুন ফ্রিজের উপরের স্তরে। পচনশীল খাদ্য ৬মাসের বেশি সংরক্ষণ করবেন না। এতে খাদ্য গুণাগুণ নষ্ট হয়ে যায়। খাবারে বিষক্রিয়া সৃষ্টি হয়। সবজি ও ফলগুলিকে ফ্রিজের নিচের বক্সে পলিথিনে মুড়িয়ে রাখা উচিত যাতে দ্রুত ফ্রিজের বাতাসে দ্রুত শুকিয়ে না যায়। সবজি ও ফল জাতীয় খাদ্য ২-৩ দিনের বেশি রাখা যাবে না কারণ ২-৩ দিনের বেশি হলে ব্যাকটেরিয়া সৃষ্টি হয় ও পঁচে যায়।

সর্বোপরি ফ্রিজ ব্যবহারে সচেতন হতে হবে।ভেজা হাতে কখনো ফ্রিজ খোলা উচিত নয়। প্রয়োজনে হাতলে কাভার ব্যবহার করতে হবে। ভারি কোন বস্তু ফ্রিজের উপর রাখা উচিত  নয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ