আতাফলের পুষ্টিগুণ

.ঢাকা, শুক্রবার   ২৬ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ১৩ ১৪২৬,   ২০ শা'বান ১৪৪০

আতাফলের পুষ্টিগুণ

ফাতিমাতুজ্জোহরা

 প্রকাশিত: ১৩:০৬ ৮ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৩:০৬ ৮ ডিসেম্বর ২০১৮

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

আতাফল একটি সুপরিচিত এবং সুস্বাদু ফল। অনেকের কাছেই এ ফলটি খুব পছন্দের। আতা খুব সহজলভ্য ফল। পাকা আতার শাঁস খুবই মিষ্টি হয়। জানেন কি? আতা আমাদের শরীরকে বিভিন্নভাবে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। আতাফলের উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন-

আতাফলের পুষ্টিগুণ: আতাফলে শর্করা, পানি, প্রোটিন ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম ও সোডিয়াম রয়েছে।

কম বেশি সকলেরই হজমের সমস্যা হয়ে থাকে। আতাফলে থাকা ফসফরাস হজম শক্তিকে বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। তাছাড়া এর খাদ্য আঁশ হজম শক্তি বৃদ্ধি করে ও পেটের সমস্যা দূর করে দেয়। এছাড়াও দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে এ ফলের জুড়ি নেই।এতে প্রচুর ভিটামিন এ রয়েছে। শুধু তাই নয়, রক্তশূণ্যতা দূর করতে পারে আতাফল।যারা অ্যানিমিয়া রোগে ভুগছেন তাদের জন্য খুবই উপকারি ফল হলো আতা। কারণ আতাফলে প্রচুর আয়রন রয়েছে। লোহিত রক্ত কণিকা বাড়াতে সাহায্য করে আতাফল। আমরা কম বেশি সকলেই হাড়ের সমস্যা ভুগে থাকি।

বয়স হলেই হাড় ক্ষয় হয়ে যায়। এ ধরণের রোগ সবারই রয়েছে। তাই আপনি যদি নিয়মিত আতাফল খেতে পারেন। তবে আপনার এ ধরণের সমস্যা অনেকটাই দূর হয়ে যাবে। তার কারণ আতা ফলে প্রচুর ক্যালসিয়াম থাকে যা শরীরের হাড় গঠন ও মজবুত করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। এমন কী রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে আতাফল। আতার মধ্যে পটাশিয়াম রয়েছে। এ খনিজ উপাদানটি রক্তবাহীর প্রাচীরকে শান্ত রাখতে সাহায্য করে। যে কারণে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। পাশাপাশি ক্ষতিকর কোলেস্ট্ররলকে শরীর থেকে বের করতে সাহায্য করে ফলটি।

বর্তমানে হার্টের সমস্যায় আক্রান্তদের সংখ্যা বাড়ছে। কারণ আমাদের জীবনযাপন অনেকটা জটিল হয়ে উঠেছে। আতাফলে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম যা মাংসপেশীর জড়তা দূর করে এবং হৃদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। তাছাড়া এর পটাশিয়াম ও ভিটামিন বি-৬ রক্তের উচ্চচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। এটি হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করে। তাছাড়াও আতাফলে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমূহের উপস্থিতি রয়েছে যা ইমিউন সিস্টেমকে উন্নত করে।

আতাফল চুল ও ত্বক পরিচর্চার ক্ষেত্রেও খুবই উপকারি। কারণ আতাফলে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা ফ্রি রেডিকেল নিয়ন্ত্রণ করে ত্বককে রক্ষা করে থাকে। এছাড়াও ত্বকের বার্ধক্য রোদ করতে পারে এ ফলটি। কারণেএ ফলে বিদ্যমান থাকা ভিটামিন এ, বি ও সি ত্বক, চুল ও চোখের জন্য খুবই উপকারি। তাই আতাফল আমাদের ত্বককে ভেতর থেকে উজ্জ্বল ও সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করে। যাদের ডায়বেটিসের সমস্যা রয়েছে তাদের আতাফল না খাওয়াই ভালো। খেলেও চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে খেতে হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস