Alexa আজব যত রেস্তোরাঁ

ঢাকা, শুক্রবার   ১৮ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ২ ১৪২৬,   ১৮ সফর ১৪৪১

Akash

আজব যত রেস্তোরাঁ

 প্রকাশিত: ১৬:৩৬ ৯ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৬:৪৭ ৯ নভেম্বর ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা কিংবা পরিবারের সঙ্গে আলাদাভাবে একটু সময় কাটানোর জন্য হোক, রেস্তোরাঁর চেয়ে বিকল্প কোনো স্থান আর হতে পারেনা। আর এখন তো অলিতে গলিতে রেস্তোরাঁ! কিন্তু আপনি কোনটিতে যাবেন তা নিশ্চয়ই নির্ভর করে খাবারের মানের উপর অথবা রেস্তোরাঁটির আউটলুক দেখে! বিশ্বজুড়ে এমন কিছু রেস্টুরেন্ট রয়েছে যেগুলোর অদ্ভুত ডিজাইন, থিম ও পরিবেশনা যে কাউকে অবাক করবে মুহূর্তেই এবং জীবনে একবার হলেও সকলে এসব রেস্তোরাঁয় খেতে যেতে চাইবেন।

ডিনার ইন দ্য স্কাই

একটি ক্রেনে করে আকাশের খুব কাছাকাছি নিয়ে যাওয়া হল আপনাকে। সেখানে বসেই আপনি উপভোগ করতে পারবেন আপনার খাবার। এমন সুযোগই করে দিয়েছে বেলজিয়ামে অবস্থিত ডিনার ইন দ্য স্কাই রেস্টুরেন্ট। ২০০৬ সালের মে মাসে হাকুনা মাতাতা নামে একটি যোগাযোগ সংস্থা, যারা মূলত বিভিন্ন বিনোদন পার্ক নির্মাণ করে থাকে তারা এই রেস্টুরেন্টটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়।

২২টি হোটেলের তরুণ মালিকেরা মিলে তাদের স্পেশাল শেফ দিয়ে এই রেস্তোরাঁটি চালু করে। এটি একটি ভাসমান রেস্টুরেন্ট। ক্রেনে করে আকাশে ভেসে ভেসে মানুষকে খাবার পরিবেশন করে যাচ্ছে। গত বছর থেকে এ পর্যন্ত, স্কাই ডিনার ৪৫টি দেশের আকাশকে অতিক্রম করেছে। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, ভারত, দুবাই, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, কানাডা ইত্যাদি।

ক্যাবেজ এ্যান্ড কনডম

আপনার মনে হতেই পারে এই অদ্ভুত নাম কেন? এটি একটি থিম নির্ভর রেস্তোরাঁ। যে নামের বাংলা করলে দাঁড়ায় বাঁধাকপি এবং কনডম। এর কারণ হিসেবে বলা যায়, প্রতিষ্ঠাতা বিশ্বাস করেন যে "জন্ম নিয়ন্ত্রণ ততটাই সহজ হওয়া উচিত, বাজারে সবজি কেনা যতটা সহজ ও স্বাভাবিক!" লিঙ্গ, শারীরিক সম্পর্ক, পরিবার পরিকল্পনা এবং এইচআইভি/এইডস সম্পর্কিত বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করতে সাধারণ মানুষের মাঝে যে অনীহা তা কাটিয়ে উঠার জন্য এবং এসব ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করে তুলতে রেস্তোরাঁটি রসিকতা এবং মজার বিভিন্ন ভিজ্যুয়াল ব্যবহার করেছে।

সুস্বাদু থাই খাবার উপভোগ করতে দুর্দান্ত জায়গাটিতে ক্রেতা সমাগম নিতান্তই মন্দ নয়। খাবার বিক্রি থেকে প্রাপ্ত অর্থ পপুলেশন এ্যান্ড কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (পিডিএ) কর্তৃক চলমান উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে ব্যবহৃত হয়। রেস্টুরেন্টের ট্যাগ লাইনটিও বেশ ব্যতিক্রম- "আমাদের খাদ্য আপনাকে গর্ভবতী করবে না"।

গুহা রেস্টুরেন্ট

অদ্ভুত যত রেস্টুরেন্ট আছে এর মধ্যে গুহা রেস্টুরেন্টের ধারণাটি আফ্রিকায় বেশ জনপ্রিয়। আফ্রিকার দক্ষিণ ‘মোম্বাসার ডায়ানি’ সমুদ্র সৈকতে এই রেস্টুরেন্টটি অবস্থিত। পাঁচ লাখ বছর পুরানো একটি গুহায় এই রেস্টুরেন্টটি নির্মাণ করা হয়েছে বলে ধারণা করেন বিশেষজ্ঞরা। বিস্ময়কর একটি ব্যাপার হলো প্রাকৃতিকভাবে সম্পূর্ণ গুহাটিতে হরেক রঙের প্রবাল ও চুনাপাথরের সংমিশ্রণ রয়েছে যা এর সৌন্দর্যকে কয়েক গুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। পরবর্তীতে, অবশ্য সাগরের ঢেউয়ের আঘাতে এর আকার আকৃতি কিছুটা পরিবর্তন হয়ে গিয়েছে। তবে এখানে অদ্ভুত গুহা রেস্টুরেন্টটি নির্মাণ করতে, ব্যবহার উপযোগী করতে সংশ্লিষ্ট ভূমির মালিক জর্জ বারবোরোরও কিছু ভূমিকা রয়েছে। গুহা রেস্টুরেন্টের খাবারের তালিকা আগে থেকে ঠিক করা থাকে না অর্থাৎ এখানে নির্দিষ্ট কোনো মেন্যু নেই! এই বিশেষত্বের কারণে আপনি কি খেতে চান তার তালিকা বরং আপনাকেই দিয়ে রাখতে হবে রেস্টুরেন্টের কর্তৃপক্ষকে।

এই আজব রেস্টুরেন্টটির পরিবেশ এতটাই গুমোট যে, এখানে গরম খাবারের পরিবর্তে ঠাণ্ডা খাবারের জনপ্রিয়তাই বেশি। তবে গুহা রেস্টুরেন্ট থেকে বেরিয়ে আসার সময় আপনাকে ধরিয়ে দেয়া হবে আপনার খাদ্যের বিল পেপার, যেটা দেখে আপনার মাথা ঘুরে যেতে পারে। কারণ অদ্ভুত এই রেস্টুরেন্টের খাবারের স্বাদ পেতে হলে আপনাকে গুণতে হবে বেশ বড় অঙ্কের অর্থের হিসাব। কেননা অত্যন্ত প্রাচীন গুহা হওয়ায় এর পরিচালনা খরচ একটু বেশিই। তাই এই ব্যাপারটি নিয়ে অনেক পর্যটকই প্রায় অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে থাকেন। রেস্টুরেন্টটির আরেকটি দিক উল্লেখ না করলেই নয়। যারাই এখানে আসেন তাদের আগে থেকেই দেয়া হয় বিশেষ প্রশিক্ষণ। এই প্রশিক্ষণ নাকি নিরাপত্তার জন্য! প্রশিক্ষণে টিকতে না পারলে মিলবে না এখানে ডিনারের অনুমতি।এই রেস্টুরেন্টে অনেকেই খেতে আসেন রামাঞ্চকর অনুভূতির স্বাদ পেতে। মনে হবে যেন ফিরে গেছেন সেই প্রাচীন আমলে। গুহার ভেতরের গুমোট পরিবেশের সঙ্গে ক্যান্ডেল ডিনারের জন্য এরই মধ্যে বেশ বিখ্যাত হয়েছে এই গুহা রেস্টুরেন্ট।

বাউ হাউজ

এ রেস্তোরাঁর কিছুটা বিভ্রান্তিকর নাম দেয়া হয়েছে, এটি সাধারণ কোনো রেস্তোরাঁ নয় যেখানে আপনি সন্ধ্যায় পরিবার বা প্রিয়জনকে নিয়ে ডিনারটি সেরে নিবেন। হংকংয়ের এটি একটি ছোট কফি শপ যেখানে সিউলের লোকেরা মূলত কফি পান করে এবং বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেয় আর খেলা করে। আর এইসব বন্ধু হচ্ছে কুকুর।

এখানে মানুষ তাদের নতুন কুকুর বন্ধুদের সঙ্গে কয়েক ঘন্টা সময় কাটানোর জন্য আসে। ক্যাফের মালিক বিভিন্ন ব্রিডের বিশটি কুকুর কিনেছিলেন। এখানে যারা খেতে আসেন তাদের নিজের কুকুরও আনতে উৎসাহিত করা হয়। যাতে মালিকেরা কফি পান করতে করতে তারা সবাই একসঙ্গে খেলতে পারে।

লবণের তৈরি রেস্টুরেন্ট ’নামাক’

ভোজনের পাশাপাশি নান্দনিকতা আনতে ইরানে তৈরি হয়েছে অদ্ভুত এক ফাস্টফুড রেস্টুরেন্ট। যার সবকিছু তৈরি লবণ দিয়ে। এই রেস্তোরাঁটির বিশেষ দিক হচ্ছে এর পরিবেশবান্ধব গুণাগুণ। লবণ দিয়ে তৈরি এই রেস্তোরাঁর নাম দেয়া হয়েছে ‘নামাক’। এর পুরো অবয়বই তৈরি হয়েছে লবণ দিয়ে।

চেয়ার টেবিল থেকে শুরু করে আনুষঙ্গিক প্রায় সবকিছুতেই লবণের আধিক্য। ইরানের দক্ষিণাঞ্চলের সিরাজ শহরে এই অদ্ভুত রেস্টুরেন্ট এরই মধ্যে স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। স্থপতি আলিরেজা ইমতিয়াজ বলেন, ‘আমরা আসলে পরিবেশবান্ধব কিছু তৈরি করতে চেয়েছিলাম। প্রথমে নানা প্রকারের লবণ নিয়ে কাজ করেছিলাম। পরে এই এলাকারই একটি হৃদে এমন লবণের সন্ধান পাই, যা আর্দ্রতাও ধরে রাখছে এবং ভঙ্গুর নয়। পরিবেশবান্ধব এই রেস্টুরেন্টের সবকিছুতেই রয়েছে স্পষ্ট পারস্যের ছাপ।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস