Alexa আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কৌশল করছে: মোশাররফ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ২ ১৪২৬,   ১৭ মুহররম ১৪৪১

Akash

আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কৌশল করছে: মোশাররফ

 প্রকাশিত: ১৯:৫০ ২৯ আগস্ট ২০১৮   আপডেট: ১৯:৫০ ২৯ আগস্ট ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ক্ষমতা হারানোর ভয়ে আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছে। 

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ কৌশল করে খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে। আওয়ামী লীগ ভে‌বেছিল এতে বিএনপি নড়বড়ে হয়ে যাবে। বিএনপি জনগণের দল। তাই তারা অন্য কৌশলে নেমেছে। 

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে স্বাধীনতা ফোরাম আয়োজিত ‘তড়িঘড়ি করে আরপিও সংশোধনের উদ্যোগ এবং বিতর্কিত ইভিএম পদ্ধতি চাপিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্রে নাগরিক শঙ্কা’ বিষয়ক সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, আওয়ামী লীগের পায়ের নিচ থেকে মাটি সরে যাচ্ছে। সরকার জনবিচ্ছিন্ন। তাই ভোট চুরি করার জন্যই ইভিএম পদ্ধতিতে ১০০ আসনে ভোটগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিনি বলেন, ওয়ান ইলেভেনের পর আওয়ামী লীগ ভোট কারচুপি করার জন্য আরপিও সংশোধন করেছিল। এখন আবার একই লক্ষ্যে আরপিও সংশোধনের চেষ্টা করছে।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, বিশ্বের যেসব দেশে এ পর্যন্ত ইভিএম ব্যবহার হয়েছে সেখানকার সবাই তা বাদ দেয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। অনেকে বাদও দিয়েছে। এর বড় উদাহরণ প্রতিবেশী দেশ ভারত। সেখান থেকে আমাদের শিক্ষা নেয়া উচিৎ। এছাড়া সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলোতে দেখা গেছে ইভিএমের সুইচে চাপ দিলে শুধু নৌকা প্রতীকই আসে। অর্থাৎ তারা ১০০ আসনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতার মত নির্বাচনে জেতার আশায় ইভিএম ব্যবহার করবে।

নির্বাচন কমিশনকে অক্ষম দাবি করে বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, ১৫ জুলাই নির্বাচন কমিশনের সচিব ঘোষণা দিয়েছিলেন আরপিও সংশোধন হবে না। ইভিএমে নির্বাচনে ব্যবহার করা হবে না। এর আগে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বারবার বলেছেন আরপিও সংশোধন করা হবে না। কিন্তু ১০০ টি আসনে ইভিএম ব্যবহারের ঘোষণা হয়েছে ও আগামীকাল আরপিও সংশোধনের একটি সভা বসবে। তাহলে তাদের তো অক্ষমই বলতে হবে। এই সরকারের অধীনে যেমন নির্বাচনে যাওয়া সম্ভব না তেমনি এই নির্বাচন কমিশনকেও সংশোধন করতে হবে।

স্বাধীনতা ফোরামের সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতউল্লাহ’র সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, আব্দুল মানিক রতন, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল ও আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারী প্রমুখ। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/এমআরকে