আওয়ামী লীগে প্রার্থীর মিছিল
SELECT bn_content_arch.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content_arch.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content_arch.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content_arch INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content_arch.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content_arch.ContentID WHERE bn_content_arch.Deletable=1 AND bn_content_arch.ShowContent=1 AND bn_content_arch.ContentID=40246 LIMIT 1

ঢাকা, সোমবার   ১০ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২৬ ১৪২৭,   ১৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

আওয়ামী লীগে প্রার্থীর মিছিল

 প্রকাশিত: ২০:০৩ ৭ জুন ২০১৮   আপডেট: ২০:৩৮ ৭ জুন ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে সাতক্ষীরায় বিভিন্ন দলের নেতা-কর্মীদের মাঝে গুঞ্জন শুরু হয়েছে। তবে আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য রাজনৈতিক দলের প্রত্যক্ষ সভা-সমাবেশ খুব একটা দেখা যাচ্ছে না।

বর্তমানে সাতক্ষীরা-২ আসনে আওয়ামী লীগের ৫ জন প্রার্থী। এদের মধ্যে বর্তমান সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান  আছাদুজ্জামান বাবু, আবু আহমেদ, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শওকাত হোসেন আবু সাঈদ।

এদের মধ্যে প্রচারণায় এগিয়ে আছে মীর মোস্তাক আহমেদ রবি ও আছাদুজ্জামান বাবু।

মীর মোস্তাক আহম্মেদ রবি ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, উঠান বৈঠক ভালো একটা পদক্ষেপ বলে আমি মনে করি। আর আওয়ামী লীগের অবস্থান  ভালো বলে একাধিক জন প্রার্থী হতে চায়।দল  যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় তাহলে আমি জয়লাভ করবো।

আসাদুজ্জামান বাবু বলেন, যাকে নৌকা প্রতিক দেওয়া হবে তার হয়ে নির্বাচনে সবাই সম্মিলিতভাবে কাজ করবে।আমি যে ভাবে কাজ করে চলেছি দল যদি আমাকে নৌকা প্রতীক দেয়া হলে আমি জয়ী হব।

Satkhira

এ ব্যাপারে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. নজরুল ইসলাম বলেন, সাতক্ষীরা জেলায় নানা ভাবে নির্বচনের  প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে  আওয়ামী লীগ আমরা বিশ্বাস করি আওয়ামী লীগ এখানে সব কয়টি নির্বাচনি এলাকায় বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে।

সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির অবস্থা নাজুক। বর্তমানে কোনো মিছিল-সমাবেশ ও কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে মাঠে দেখা মিলছে না।

এ আসনে জামায়াতের একটি বিশাল ভোট ব্যাংক রয়েছে। জামায়াত এককভাবে প্রার্থী না দিতে পারলে বিএনপির সঙ্গে জোট করবে।তাহলে ভোটের ফলাফলে বিএনপি জয় লাভ করতে পারে বলে অনেকে মনে করেন।

জেলা বিএনপির সভাপতি রাহমাতুল্লাহ পলাশ ও সিনিয়র সহ-সভাপতি ও লাবসা ইউপির চেয়ারম্যান  আব্দুল আলিমের নাম বেশি শোনা যাচ্ছে।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম ডেইলি বাংলাদেশ বলেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে  দল বিএনপি অবশ্যই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে সাতক্ষীরা-২  আসনে বিএনপি জয় লাভ করবে।

জাতীয় পার্টির প্রাথী ২ জন নেতা তৃণমূল পর্যয়ে কাজ করে চলেছে ।তারা হলেন জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শেখ আজহার হোসেন ও জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান আশু।তবে আশরাফুজ্জামান আশু প্রচারণায় এগিয়ে আছে।

সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির  সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার জাহিদ তপন বলেন, এক কথায় বলা যায় সাতক্ষীরা সদরে পার্টির  সাংগঠনিক অবস্থা মজবুত।

সদর উপজেলা ওয়ার্কাস পার্টির সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট ফাইমুল হক কিসলু বলেন, সাতক্ষীরা-২ আসনে আমার দলের অনেক কর্মতৎপরতা রয়েছে। আমাদের যে সব গণসংগঠন আছে তারা কাজ করছে।  আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জঙ্গিগোষ্ঠির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। তিনি বলেন, ওয়ার্কাস পাটি থেকে যদি আমাকে মনোনয়য়ন দেয়া  এলাকার মানুষের জন্য কাজ করবো।

সাংস্কৃতিক কর্মী তুষার মিত্র ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, সংসদে যারা থাকেন তারা অনেক কিছু বলেন কিন্তু ভোটের পরে আমদের কোন উন্নয়ন করেন না। এমনকি আমাদের দিকে ফিরেও তাকান না। আমরা চাই এমন একজন সংসদ সদস্য যিনি ভোটের পরে আমাদের যেসব সমস্যা আছে সেগুলো সমাধান করবেন।

আইনজীবী অ্যাডভোকেট ওসমান গনি ডেইলি বাংলাদেশ কে বলেন, সাতক্ষীরার প্রেক্ষাপট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তিকে ক্ষমতায় আনার জন্য কাজ করতে হবে।

মুক্তিযোদ্ধা সুধাংশু সরকার বলেন, আগামী সংসদ নির্বচনে সাতক্ষীরার চারটি আসনের মধ্যে সাতক্ষীরা ২ আসন গুরুত্বপূর্ণ। আমরা চাচ্ছি যে, আগামী  সংসদ নির্বাচনে এমন একজন কেউ আসুক যিনি আমাদের সমস্যাগুলোর সমাধান করবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ