Alexa অবাক করেছে আন্দামান!

ঢাকা, রোববার   ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ৩০ ১৪২৬,   ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১

বিদেশে ঈদ ভ্রমণ-৩

অবাক করেছে আন্দামান!

সজল জাহিদ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১০:৪৬ ২৫ মে ২০১৯   আপডেট: ১০:৪৮ ২৫ মে ২০১৯

নীলাভ-সবুজ রঙের জল-খ্যাত আন্দামান

নীলাভ-সবুজ রঙের জল-খ্যাত আন্দামান

পৃথিবীর যে কত রং, কত রূপ, কত-শত রকমের বৈশিষ্ট্য—তা কি সহজেই বোঝানো যাবে? সম্ভব না। তবে কবি সাহিত্যিকেরা ঠিকই পৃথিবীর রং-রূপ নিয়ে লিখে গেছেন পৃষ্ঠার পর পৃষ্ঠা। তামাম দুনিয়ার সৌন্দর্যে ডুবে কত মানুষ যে অন্য এক মানুষ হয়ে, তার কোনো ইয়ত্তা নেই! তাইতো কেউ একজন লিখেছিলো,

“… তবুও পৃথিবীর কীট হয়ে এখনো সমুদ্র ভালোবেসে
সমুদ্রকে মনে করে তার দ্বিতীয় আবাস…”

ঠিক তাই! যুগ যুগ ধরে সমুদ্র-মানুষে কি এক ধরণের অম্ল-মধুর সম্পর্ক তৈরি হয়নি? এই সমুদ্রের কোল ঘেষেই তো জন্ম নিলো সভ্যতা, শুরু হলো অর্থনীতি, ঘুরে গেলো পৃথিবীর চাকা! এই ছোট ছোট দ্বীপের সাথে মানুষের যে বন্ধন- তা অস্বীকার করার কোনো উপায় আছে? এখনো মন খারাপ করে কোথাও বসে থাকতে চাইলে ইচ্ছে হয় সমুদ্রের তীর ঘেষে একটু বসি। এখনো পরিযায়ী পাখির মতো ঘুরে বেড়াতে চাইলে ইচ্ছে হয় ঘুরে বেড়াই দ্বীপান্তরে। এখনো ইচ্ছে হয় ছুটে যাই এমন কোথাও যেখানে দু’দন্ড শান্তি মিলবে, হাভাতের মতো টাকা খরচ না করেও নিরেট আনন্দ মিলবে। আর এসব একসঙ্গে পেতে যেতে হবে- আন্দামান!

কোনো পরিকল্পনা ছাড়াই, এক প্রস্তাবে পৌঁছে গেলাম আন্দামান৷ সেলুলার জেল-খ্যাত ও নীলাভ-সবুজ রঙের জল-খ্যাত এই জায়গার কথা শুনলে ‌‘না’ বলা যা কিভাবে তা আমার জানা নেই। কলকাতা থেকে আন্দামান ঠিক ২ ঘণ্টার ফ্লাইট! কাছাকাছি পৌঁছাতেই বিমানের জানালায় চোখ রেখে দেখা যায় অদ্ভুত নীল জলরাশি। ওইতো আন্দামান! পৃথিবীর আদিমতম আদিবাসীদের দেশ, কালাপাহাড়ের দেশ! সকালের রোদে চিকমিক করতে থাকা গোটা আন্দামানে চোখ জুড়ে খেলা করবে রাজ্যের বিষ্ময়! পৃথিবীটা এতো সুন্দর কেন? জীবনটা এতো আশ্চর্য ছোট কেন!

আন্দামানে প্রচুর সামুদ্রিক মাছ পাওয়া গেলেও দাম অনেক বেশি

তবে জানা গেল, এই দ্বীপ অঞ্চলের প্রয়োজনীয় মালপত্রের বেশিরভাগই জাহাজেই পৌঁছায়৷ কিন্তু অসম্ভব ঝড়ো ভ্রমণের মধ্যেও যেটা টের পাওয়া গেল, তা হল আন্দামান অত্যন্ত ব্যয়বহুল এক জায়গা৷ যদিও তার ব্যাখ্যা হিসেবে এখানকার লোকজনেরা বলে থাকেন— এখানকার যা কিছু তা সবই অন্য রাজ্য থেকে আনতে হয়, তাই সবকিছুতেই টাকা একটু বেশি গুনতে হয়৷ যে হোটেলে ছিলাম সেখানকার কর্মচারিরা জানালো, কলকাতায় ১০ থেকে ১২ টাকা আলুর কেজি, এখানে ৪৫ টাকা। ২০ টাকার পেঁয়াজ এখানে ৬০ টাকা কেজি৷

মেগাপট ও হর্নবিল নামের দুটো দৃষ্টিনন্দন হোটেল রয়েছে পোর্টব্লেয়ারে। এই দুই হোটেলেই যদি ডিম দিয়ে কারি খেতে চান দাম পড়বে ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা! তাও তো পোর্টব্লেয়ার রাজধানী৷ এখানে সরকারি অতিথিশালায় আতিথ্য গ্রহণ করলে প্রাতরাশে ডিম কমপ্লিমেন্টারি মিলবে৷ কিন্তু পোর্টব্লেয়ার থেকে ‘অবশ্য গন্তব্য’ হ্যাভলক দ্বীপের সরকারি অতিথিশালায় আতিথ্য নিলে প্রাতরাশ কমপ্লিমেন্টারি হলেও ডিম সেদ্ধ কিংবা পোচ কিংবা অমলেট কিনে খেতে হবে৷ কেন এতবার দামের উল্লেখ করছি সে কথায় আসছি! তবে ভারতের মূল ভূখণ্ড থেকে অনেকটাই দূরের অবস্থানের কারণেই কি এত দাম? যদিও কেউ প্রশ্ন করে না, কারণ টাকা খরচ করতেই তো মানুষ এখানে আসে!

সুরমা মাছ হচ্ছে এই দ্বীপের সবচেয়ে সম্মানী মাছ। জনপ্রিয় মাছে তালিকায় আরো আছে অ–কুলীন জোনা মাছ। কিন্তু তার স্বাদ-টাদ নিয়ে কোনো কথা না বলাই ভালো৷ এর দামই কেজি প্রতি ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা৷ যে ড্রাইভার আমাকে ঘুরিয়েছে, সে বললো, শসা, আনারস, পেঁপে ছাড়া কিছুই নেই আমাদের এখানে৷ ধান চাষও হয় না খুব একটা৷ সব আসে চেন্নাই বা কলকাতা থেকে।

অনেকেই সাইকেলে ঘুরে বেড়ান পুরো দ্বীপ

যেতে হবে রাধানগর সৈকত। এশিয়ার সেরা সমুদ্রতটে কী না আছে! আরো নিখুঁতভাবে বললে- হ্যাভলক দ্বীপের সৌন্দর্যে মোহিত হবে না এমন মানুষটি পাওয়া দুষ্কর। রহস্যময় সুন্দর এই দ্বীপটিতে যেতে পোর্ট ব্লেয়ার থেকে রওনা করতে হয় প্রাইভেট ফেরিতে। খরচ ৭০০ থেকে শুরু করে ৬০০০ টাকা পর্যন্ত, ফেরির কোয়ালিটির উপর নির্ভর করে। মোটামুটি দুই-আড়াই ঘণ্টার জার্নি। পৌঁছে দেখতে পাবেন প্রবাল ঘেরা সৈকত। এক দ্বীপ থেকে আরেক দ্বীপে যেতে হবে ছোট ছোট জাহাজে করে। আর এই জাহাজে করে যাবার পথে সমুদ্রের সৌন্দর্যকে নানাভাবে আবিষ্কার করা যায়। কখনো সমুদ্রের জলের রঙের পরিবর্তন দেখে অবাক হবেন- কোথাও নীল, কোথাও সবুজ। আবার কখনো মন ভালো করে দেয়া আকাশই নিশ্চিত! সবুজের সমাহারে হারিয়ে যেতে পারেন চোখ জুড়ানো এলিফ্যান্ড বিচে। কালাপাথর বিচেও ঘুরে আসতে পারেন সেই সঙ্গে!

চারদিকে গভীর সমুদ্র। জলের অসামান্য বর্ণ বৈচিত্র্য আর অসাধারণ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখার জন্য পর্যটকের ভিড় লেগেই থাকে। কিন্তু একই সঙ্গে মূল ভূখণ্ড থেকে যাতায়াত যথেষ্ট ব্যয়সাধ্য বলে এখানে তারাই আসতে পারেন যাদের বেড়াতে গিয়ে হিসেব করার তেমন কোনো প্রয়োজন নেই। ভারতের বাকি পর্যটন কেন্দ্রগুলো থেকে আন্দামান আরেকটি বিষয়ে স্বতন্ত্র। এখানে যারা বেড়াতে আসেন তাদের মধ্যে ৯৫ শতাংশ মানুষ আসেন ট্যুর অপারেটরের মাধ্যমে। ফলে দু’বেলা খাবার বা ঘোরার অর্থ যেহেতু তারা আগেই গচ্ছিত করে দেন, এখানকার অস্বাভাবিক দামের ব্যাপারটি তারা তেমন ভাবে বুঝে উঠতে পারেন না। আসলে এখানে এটাই দস্তুর হয়ে দাঁড়িয়েছে‍ যে, ফুলকপির তরকারির দাম ১৭০ টাকা! কিন্তু আশ্চর্যের ব্যাপার হলো স্থানীয়দের জন্য জিনিসপত্রের দাম আবার অন্যরকম। অর্থাৎ একই জিনিসের দু’রকম মূল্যের বাজার রয়েছে আন্দামানে।

দামের কথা চিন্তা না করে ঘোরা দরকার! পোর্ট ব্লেয়ারে ফিরে দেখতে পারেন লং আইল্যান্ড। ডলফিনের খেলা, পরিচর্যা কখন, কীভাবে করা হয়- এসবের দেখা মেলে কত সহজেই। বিখ্যাত সেলুলার জেলও দেখে আসা যায় একনজর। ব্রিটিশদের শাসনামলে তাদের বিরুদ্ধে কথা বললেই সোজা নির্বাসনে পাঠানো হতো এই দূরদ্বীপে। তারপর তাদের ওপর নেমে আসতো সীমাহীন অত্যাচার। ইতিহাসের এসব অভিনব গল্পের সাক্ষী হতে চাইলে পোর্ট ব্লেয়ারের এই জেল না দেখে আসা চলবে না।

জায়গাটি মুগ্ধ হতে বাধ্য করে!

কোরাল ও মাছের জগতে প্রবেশের সুযোগ এখানে এসে হাতছাড়া করে না কেউই। নির্ধারিত পোশাক পরে দেয় সমুদ্রের গভীরে। স্নোরকেলিং বলা হয় একে। আমাদের সেন্টমার্টিনেও এই সুবিধাটা আছে। গাইড সঙ্গী হাত ধরে নিয়ে গেল যেখানে রয়েছে কোরালের বেশি বেশি উপস্থিতি সেখানে। জলের নিচে মাথা ডুবিয়ে দেখবেন এক বিস্ময়কর জগত। এত রং! এতো রহস্য! এতো সুন্দর! দেখবেন মৃত ও জীবন্ত কোরালের সমাহার। চারিদিকে ঘুরে বেড়াচ্ছে নানা রঙের মাছ। মনে হয় যেন চুমু খাবে এসে। এসব যতোই দেখবেন ততোই নেশা! আশ আর মিটবে না। তবে আশ মিটিয়ে স্নোরকেলিং বা স্কুভা ডাইভিং- যাই করেন না কেন, নিজের পকেটের দিকেও যে নজর রাখতে হবে! ২৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ১২ হাজার টাকা পর্যন্ত দাম হাঁকা হয় মিনিট পনেরর জন্য!

বলতে না চাইলেও বার বার এই টাকার কথা ওঠার কারণ একটাই৷ সাধারণ মানুষের বেড়াতে‍ আসার জন্য নয় আন্দামান৷ অতএব যা হয়, ভাত থেকে শুরু করে স্নোরকেলিং— সবকিছুতেই অদৃশ্য আগুনের উত্তাপ। দামের উত্তাপ।

মাত্র তিন রাত্রি ঘুরে একটা বিষয় স্পষ্ট বুঝতে পেরেছি, এখানকার মানুষজন শান্তিপ্রিয়। খরচ যতই হোক না কেন, এখানকার মানুষ জানে এই বিচ্ছিন্ন ভূখণ্ডে পর্যটক আসবেই সৌন্দর্যের টানে এবং ফিরে যাবে অপূর্ব সবুজ বনরাজি আর বর্ণময় সমুদ্রের স্মৃতি নিয়ে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে