Alexa অবসকিওরের নতুন দেশের গান ‘টিটোর স্বাধীনতা’

ঢাকা, শনিবার   ২৩ নভেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ৮ ১৪২৬,   ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

অবসকিওরের নতুন দেশের গান ‘টিটোর স্বাধীনতা’

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২০ ২৫ মার্চ ২০১৯   আপডেট: ১৫:২১ ২৫ মার্চ ২০১৯

ঘড়ির কাটায় তখন রোববার রাত বারোটা। আর তখনই বাংলাদেশের নামী পুরোন ব্যান্ড অবসকিওর-এর নতুন গান ‘টিটোর স্বাধীনতা’ প্রচার করা হলো চ্যানেল আই-এর পর্দায়। 

অবসকিওর বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও দেশের গান গত পাঁচ বছরে বেশি প্রকাশ করেছে। ‘টিটোর স্বাধীনতা’ শিরোনামের গানটির গীতিকার কলকাতার কবি অমিত গোস্বামী। 

অবসকিওরের কর্ণধার সাইয়িদ হাসান টিপু এই গান সম্পর্কে বললেন, একাত্তরের যুদ্ধে অংশ নিয়েছিল কিশোর গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা গোলাম দস্তগীর টিটো। টিটোর মা-বাবাকে গুলি করে মেরেছিল পাকিস্তানি হানাদাররা। কোনোমতে পালিয়ে সেক্টর কমান্ডার খালেদ মোশাররফের কাছে হাজির হয় সে। অনেক বুঝিয়েও টিটোর সংকল্পের কাছে হার মানেন খালেদ। টিটো যোগ দেয় কমান্ডার মানিক ও কমান্ডার নাসির উদ্দীন ইউসুফের সঙ্গে। মুক্তিযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায় সে। সাভার ডেইরি গেটের ডান পাশে রয়েছে তার কবর। তাকে নিয়েই এ গান লিখেছেন কলকাতার কবি অমিত গোস্বামী। টিটোকে নিয়ে নাসির উদ্দীন ইউসুফের ২৬ পৃষ্ঠার একটি বই আছে—‘টিটোর স্বাধীনতা’। সেখান থেকেই উৎসাহটা পেয়েছি।

সাইয়িদ হাসান টিপু আরো বলেন, ২০১৪ থেকে মুক্তিযুদ্ধ আর দেশ নিয়ে গান করছি। ক্র্যাক প্লাটুন ও আজাদকে নিয়ে পুরো অ্যালবাম করেছি। এই মানুষগুলোকে নিয়ে বলার মানুষ খুব কম। তাদের সেভাবে স্মরণও করা হয় না। সে কারণেই আমরা তাদের নিয়ে গান করছি। মানুষকে তাদের আত্মত্যাগ সম্পর্কে জানানোই এর উদ্দেশ্য।

এদিকে, সায়িদ হাসান টিপুর ঘরনী ও শহিদ আলতাফ মাহমুদের কন্যা যে অবসকিওরের সকল উদ্যোগের পিছনে নীরব ভূমিকা রাখেন সেই শাওন মাহমুদ বললেন,  আমাদের একটাই পতাকা। একটাই মুক্তিযুদ্ধ। আমাদের একটাই দেশ। বাংলাদেশ। যারা দেশকে ভালোবেসে মুক্তিযুদ্ধকে ধারণ করে আত্মপরিচয়ে, তাদের জন্য অবসকিওর প্রতি বছর নিজেদের এ্যালবামে দুটো তিনটে দেশের গান উপহার দেয়। এই বছরও আসছে অবসকিওরের নতুন অ্যালবাম ‘টিটোর স্বাধীনতা’। যা এদেশের মুক্তিযুদ্ধের একটি স্মারক।

এ ব্যাপারে আমরা টেলিফোনে যোগাযোগ করেছিলাম গানটির গীতিকার কবি অমিত গোস্বামীর সঙ্গে। তিনি বললেন, যদি গান শ্রোতাদের ভাল লাগে তার কৃতিত্ব সায়িদ হাসান টিপু এবং অবশ্যই শাওন মাহমুদের। কারণ ওরা আমাকে দিয়ে গান লিখিয়েছেন ও ‘আলতাফ’ উপন্যাস লিখতে অনেক অনেক সাহায্য করেছেন। ওদের বাসায় দিনের পর দিন থেকেছি। অনুভব করেছি মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে। আমার বুকে ধারণ করেছি এই দেশকে। আর স্বাধীনতার চেতনার ওপরে কাজ করতে আমি যে কখন মানসিকভাবে তুমুল বাংলাদেশী হয়ে গেছি, জানি না। সে কারণে অবশ্যই আমি গর্বিত। তবে একটা কথা স্পষ্ট বলি, স্বাধীনতা দিবস বা বিজয় দিবসে সারা পৃথিবীতে বিভিন্ন উদ্যোগে বহু অনুষ্ঠান হয়। কিন্তু দেশের বাইরে দেশাত্মবোধক গান গাইতে তাদের ডাক খুব কম আসে এটাই আমার একটি বড় আপসোস। 

খুলনা থেকে ১৯৮৫ সালের ১৫ মার্চ বাংলার ব্যান্ডাকাশে জন্ম নিলো এক নতুন তারা যার নাম ‘অবসকিওর’। অবসকিওরের প্রথম অ্যালবামের নাম ‘অবসকিউর ভলিউম-১’। ১৯৮৬ সালে সারগাম স্টুডিও থেকে বেরিয়েছিলো অ্যালবামটি। প্রথম অ্যালবামের গানগুলি আজও রয়েছে শ্রোতাদের মুখে মুখে। যার অন্যতম হলো ‘মাঝরাতে চাঁদ’, ‘ভণ্ড বাবা’, ’ছাইড়া গেলাম মাটির পৃথিবী’, ‘মমতায় চেয়ে থাকা’। 

এখন পর্যন্ত ব্যান্ডের ১২টি অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে। ২০০৭ সালের পর থেকে অবসকিওরের অ্যালবামগুলিতে একটি পরিবর্তন লক্ষ্যণীয়। এসময় থেকে অবসকিওরের গানে দেশপ্রেম, স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের কথা উঠে আসে। ২০১৫ সালে ‘আরটিভি ভিউয়ার’স চয়েজ’ পুরস্কার পায় অবসকিওর। এছাড়া, ২০১৬ এবং ২০১৭ সালে টানা দুইবার ’চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড’ লাভ করে ব্যান্ডটি। বাংলাদেশের দেশাত্মবোধক গানের ক্ষেত্রে সবচেয়ে এগিয়ে আছে অবসকিওর। আজাদ, পিতা, দেশ ছাড় রাজাকার, আলতাফ এখন মানুষের মুখে মুখে।

টিটোর স্বাধীনতা’ গানের কথা

মনের মাঝে ঘুরে বেড়াস, দূরে থেকেও পাশে

তোর কবরে রোদ পড়েছে নতুন কচি ঘাসে।

চোদ্দ বছর বয়েস ছিল যখন এলি কাছে।    

মুক্তিকামী কিশোর টিটো আমার পাশে পাশে। 

 
বারেবারে যুদ্ধে যাওয়ার আগুন প্রবণতা

সেদিন ছিল সাভার জুড়ে শত্রু আসার কথা

আমরা ছিলাম মধ্যমাতে, ডাইনে বাঁয়ে আরো

কেন যে তুই দৌড়ে গেলি ডাক না শুনে কারো

 
হানাদারের বৃষ্টি বুলেট বিঁধল বুকের মাঝে

শহিদ হলি টিটো আমার স্পষ্ট মনে আছে

কেউ ফেরাতে পারে নি আর মৃত্যু খরস্রোতা

শেষ কথাটা বলেছিলি দেখব আমার স্বাধীনতা

 
স্বাধীন দেশের শহিদ টিটো আমার যত আদর

দিয়ে ঢেকে দিলাম তোকে স্বাধীনতার চাদর

দেশ পেয়েছে স্বাধীনতা পায় নি তোকে আর

তোকে ভেবে কাঁদে রে তোর বাচ্চু কমান্ডার।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস