অপমানের কারণ…

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২০ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৭ ১৪২৬,   ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

অপমানের কারণ…

 প্রকাশিত: ১৫:১৫ ১০ অক্টোবর ২০১৮   আপডেট: ১৫:১৫ ১০ অক্টোবর ২০১৮

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

গৌতম বুদ্ধকে নিয়ে একটি গল্প প্রচলিত রয়েছে- এক ব্যক্তি প্রায়ই কটু কথা বলে বুদ্ধকে অপমান করতেন। কিন্তু বুদ্ধ কখনো সেই ব্যক্তির কথায় বিব্রত হতেন না। তাকে এত অপমান করার পরও তিনি কোনো কথা বলতেন না। কোনো বলতেন না এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যদি কেউ আপনাকে কোনো উপহার দেয় আর সেটি নিতে অস্বীকার করেন তবে উপহারটি কার হবে’। আসলে আপমান বলতে কি বোঝায়? কাউকে অপমান করার মানে হলো তার সঙ্গে অসম্মানজনক কথা বলা বা খারাপ ব্যবহার করা। সাধারণত অপমান করার ধরণ দুই রকমের হতে পারে- সবার সামনে মেরে অপদস্ত করা এবং মৌখিক অপমান করা।   

জীবনের পথ চলায় কখনো একইসঙ্গে সবাইকে ভালো রাখতে পারবেন না, এটাই স্বাভাবিক। কিছু মানুষ আপনাকে পছন্দ করবে আর কিছু মানুষ অপছন্দ করবে। আর অপছন্দ করা মানুষ হতে পারে আত্মীয় স্বজন, বন্ধু বান্ধব বা কর্ম ক্ষেত্রের কেউ। এসব ব্যক্তিরা আপনাকে ছোট করার জন্য বিভিন্নভাবে অপমান করার চেষ্টা করে থাকে। কেউ যখন অপমান করার চেষ্টা করে প্রথমেই মনে আসে কেনো সে অপমান করতে চাইছে? এর চারটি কারণ হতে পারে-

১. অনিরাপত্তা: বিভিন্ন কটু কথা বলে যারা ছোট করার চেষ্টা করে তারা সাধারণত নেতিবাচক চিন্তাধারার অধিকারী হয়ে থাকে। অনেকেই রয়েছেন যারা নিজেকে নিয়ে সব সময় অনিরাপত্তায় ভুগে থাকেন। নিজেদের সম্পর্কে তারা ভালো কিছু ভাবতে পারে না। তাই তারা অন্যদের ছোট করে নিজেকে সন্তুষ্ট করার চেষ্টা করে থাকেন।

২. ঈর্ষা: কাউকে অপমান করা ক্ষেত্রে দ্বিতীয় কারণ হলো ঈর্ষা। ঈর্ষান্বিত ব্যক্তিরাই হাসি ঠাট্টা করে অপমান করার চেষ্টা করে। কাউকে অপমান করার পেছনে ঈর্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি কারণ। ঈর্ষান্বিত ব্যক্তিরা মনে করেন তারা তাদের কাজের জন্য যথেষ্ঠ ক্রেডিট পাচ্ছেন না। তাই তারা সব সময় তাদের থেকে বেশি ক্রেডিট পাওয়া ব্যক্তিদের অপমান করে থাকেন।

৩. বুঝতে না পারা: অনেকেই কারো অক্ষমতা নিয়ে অপমান করে থাকে। অপমানকারী না জেনেই কোনো ব্যক্তির অক্ষমতা নিয়ে মন্তব্য করে থাকেন। সে কখনো বুঝতে পারে না যে, তার করা মন্তব্য ব্যক্তিটির ওপর কেমন প্রভাব ফেলছে। মনে করুন, স্কুলে একটি ছেলের কথা বলতে সমস্যা হয় বা সে তোতলামীর সমস্যায় ভূগছে। আর তার সহপাঠিরা সমস্যাটি বুঝতে না পেরেই তাকে নিয়ে মজা করছে।

৪. মজা করা: অন্যরা আপনাকে পছন্দ করে বলেই অনেক সময় মজা করে থাকে। তারা মনে করে, আপনার সঙ্গে যে কোনো বিষয় নিয়ে মজা করা যায়। যেমন: স্বাস্থ্য ভালো হলে বন্ধুরা মোটা বলে ডাকবে। আবার রোগে হলে চিকনি বলে ডাকবে। এসব কারণে অনেকই অপমানবোধ করেন। কিন্তু এ ক্ষেত্রে তার উদ্দেশ্য কিন্তু কষ্ট দেয়া নয়। তার এ ধরণের মন্তব্যে খারাপ লাগলেও আসলে তাদের উদ্দেশ্য হলো কেবল মজা করাই।  

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস/এসজেড