অনেক অজানাকে জানায় ‘জারিফের স্কুল’  ।। পলিয়ার ওয়াহিদ

ঢাকা, বুধবার   ১৯ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৫ ১৪২৬,   ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

অনেক অজানাকে জানায় ‘জারিফের স্কুল’  ।। পলিয়ার ওয়াহিদ

পাঠভাবনা ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:১৪ ৩০ এপ্রিল ২০১৯  

বইয়ের প্রচ্ছদ

বইয়ের প্রচ্ছদ

জারিফের স্কুল। একটি কিশোর উপন্যাস। কিন্তু এটা পড়ার পর মনে হয়েছে এ বই সবার পড়া উচিত।

উচিত বলছি এ কারণে যে, পশু-পাখি প্রাণী নিয়ে এতো বিস্তর জানাশুনা উপন্যাসটি আমাকে অভিভূত করেছে! তাপস রায়। তাকে চেনার আগেই পল্টন থেকে ২০ টাকা দিয়ে কেনা ‘আনু মামার আম্পায়ারিং’ কিনেছিলাম বছর চারেক আগে। সেই থেকে তার লেখার ভক্ত হয়েছি। এখনো পড়ি অবসরে। গল্প-প্রবন্ধ-নিবন্ধ-উপন্যাস নানা কিসিমের লেখা পড়েছি উনার। বারবার তার লেখায় কুপোকাত হয়েছি। চরম গরমেও একটু নরম হতে আসুন একবার ভর্তি হই জারিফের স্কুলে! বইটির বিশেষত্ত্ব হলো মজার বা হাসির মাধ্যমে অনেক অজানাকে জানানো। আছে অনেক প্রশ্ন? নানা ঘটনার ঘনঘটা। যুক্তি দিয়ে ন্যায়-অন্যায় বোঝার ক্ষমতা। এই শিক্ষাদান পদ্ধতি আনন্দের।

# জিরাফের গলা লম্ব হলো কী করে?
# গাধা কেন পানি ঘোলা করে খায়?
# একটি ভুল, খরগোশের সারাজীবনের কান্না!
# বন্ধুত্ব হলেই শত্রুতা শেষ হয়ে যায়
# কাক কেন কা কা করে?
উপন্যাসটি এরকম আলাদা আলাদা দারুণ সব কৌতুহলী নামে ভাগ করা হয়েছে।
যা এখনো ভুলিনি:

* বন খোলা বইয়ের পাতার মতো। পড়লেই সব জানতে পারবে। তার আগে ধৈর্য ধরে শিখতে হবে।
* বনের নিরীহ প্রাণীরা রাত ভালোবাসে না।
* পেটে ক্ষুধা উঁকি দিলে প্রাণীদের
* ঝুঁকি নিতে হয়।
* পাখিরা চিৎকার করে নীচের প্রাণীদের সতর্ক করে। দোয়েল শিকারী দেখলেই তীব্র কর্কশ শিস দেয়।
* মারকুটে, বদরাগী হিসেবে কালিম পাখির দুর্নাম আছে।
* মানুষ নেকড়েদের পোষ মানিয়েছিল। সেখান থেকে বিবর্তনের ফলে গৃহপালিত কুকুরের সৃষ্টি।


আর জানা যাবে মিনিমান পঞ্চাশ থেকে একশ পশুপাখি ও বৃক্ষের নাম ও তাদের দৈনন্দিন কলাকৌশল আর নানান আচার আচারণ।

বই : জারিফের স্কুল
লেখক: তাপস রায়
প্রকাশক: পাঞ্জেরী
প্রচ্ছদ: গৌতম ঘোষ
মূল্য: ১৭৫টাকা