Alexa অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে ক্রিকেটাররা

ঢাকা, বুধবার   ২০ নভেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ৬ ১৪২৬,   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে ক্রিকেটাররা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৫০ ২১ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৬:৫৫ ২১ অক্টোবর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ধরণের ক্রিকেট থেকে বিরত থাকার ঘোষণা দিয়েছেন টাইগার ক্রিকেটাররা। 

সোমবার বিকেলে আচমকা একটি সংবাদ সম্মেলন ডেকে এ সিদ্ধান্ত জানান তারা। দেশীয় ক্রিকেটের বর্তমান বিভিন্ন অব্যবস্থাপনার কারণে এরইমধ্যে ক্রিকেটারদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। 

সংবাদ সম্মেলনে ১১ দফা দাবি পেশ করেন সাকিব-তামিম-মুশফিকরা। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত এই ধর্মঘট চলবে বলে জানান তারা। 

সংবাদ সম্মেলনে সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, নাঈম ইসলাম, এনামুল হক বিজয়, নুরুল হাসান সোহানসহ অনেক ক্রিকেটার। আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, রুবেল হোসেন, নাজমুল ইসলাম অপু প্রমুখ।

ক্রিকেটারদের দাবিগুলোর ভেতর উল্লেখযোগ্য হলো বেতন-ভাতা বাড়ানো, জাতীয় ক্রিকেট লিগের ওয়ানডে ভার্সন নিয়ে আসা, ঘরোয়া মৌসুমের একটি সুষ্ঠু ক্যালেন্ডার তৈরি করা, পারিশ্রমিক প্রদানের ব্যাপারে নিশ্চিত থাকা, বিভিন্ন বিভাগীয় পর্যায়ের মান উন্নয়ন করা ইত্যাদি। 

সাকিব আল হাসান বলেন, ‘এনসিএলের ম্যাচ ফি ১ লাখ টাকা করতে হবে। এনসিএলসহ ঘরোয়া ক্রিকেটে যারা খেলেন তারা সবাই এই আন্দোলনের সাথে যুক্ত আছেন। যদি আমাদের নারী দলের ক্রিকেটাররা এই আন্দোলনের সাথে যোগ দিতে চান তাহলে আসতে পারেন। আমরা তাদের দাবিগুলোও তুলে ধরব। 

"দাবিদাওয়া পূরণ না হওয়া পর্যন্ত কোনো ধরনের ক্রিকেট কার্যক্রমে অংশ নেবেন না ক্রিকেটাররা।"

ক্রিকেটারদের এই ঘোষণার পর আগামী ২৪ অক্টোবর শুরু হতে যাওয়া জাতীয় ক্রিকেট লিগের তৃতীয় রাউন্ড এবং ২৫ অক্টোবর শুরু হতে যাওয়া জাতীয় দলের ক্যাম্প কার্যত অনিশ্চয়তার মুখে পড়ল।

"জাতীয় দল, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারসহ সবাই এই ধর্মঘটের অন্তর্ভূক্ত এবং সেটা আজ থেকে। জাতীয় লিগ থেকে শুরু করে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট বলেন, জাতীয় দলের প্রস্তুতি বলেন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বলেন সবগুলোই এর অন্তর্ভূক্ত।"

"আলোচনা সাপেক্ষে অবশ্যই সবকিছুর সমাধান হবে। দাবিগুলো যখন মানা হবে তখন আমরা স্বাভাবিক কার্যক্রমে ফিরে যাব।"

"আমরাও সবাই চাই ক্রিকেটের উন্নতি হোক। এখানে একটা ক্রিকেটার কেউ তিন-চার বছর খেলবে, কেউ দশ বছর আছে। যারা ভবিষ্যতে আসবে, তাদের জন্য আমরা একটা ভালো পরিবেশ রেখে যেতে চাই যেখান থেকে বাংলাদেশের ক্রিকেট সামনে এগিয়ে যাবে।"

যেহেতু অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সামনে বিশ্বকাপ আছে, তাই তাদেরকে এই ধর্মঘটের আওতায় রাখা হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সাকিব।

তামিম ইকবাল বলেন, ‘ক্রিকেটের সাথে শুধু ক্রিকেটাররাই জড়িত নন। এর সাথে গ্রাউন্ডসম্যানরাও ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আপনারা দেখেছেন যে, তারা সারাদিন কাজ করে। অথচ মাস শেষে পাঁচ-ছয় হাজার টাকা বেতন পান। তাছাড়া আমরা আমাদের দেশের কোচদেরও প্রোমোট করি না। দেখা যাবে, বিদেশি একজন কোচের বেতন যা আমাদের দেশের ২০ জন কোচ মিলে সেই বেতন পান।’

মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে জানেন প্রিমিয়ার লিগের পরিস্থিতি কি। এটা নিয়ে কম বেশি সবাই অসন্তুষ্ট। এখানে পারিশ্রমিকের একটা মানদণ্ড বেঁধে দেয়া হয়েছে। খেলোয়াড়দের অনেক লিমিটেশন দেয়া হয়েছে। আগে যেমন ছিল, তেমনটা নেই। খেলোয়াড়রা আগে বাছাই করতে পারতো, কোন দলে খেলবে, পারিশ্রমিক কেমন হবে। আমাদের দাবি হলো আগের মতো যেন প্রিমিয়ার লিগটা ফিরে পাই।’

এনামুল হক বিজয় বলেন, ‘ঘরোয়া ক্রিকেটে টুর্নামেন্টের সংখ্যা বাড়াতে হবে যাতে করে আমরা বেশি ম্যাচ খেলতে পারি। আগে এনসিএল টুর্নামেন্টের মাঝে ৫০ ওভারের একটি টুর্নামেন্ট হতো। আমরা এনসিএল ম্যাচ খেলে ৫০ ওভারের ম্যাচ খেলার সুযোগ পেতাম। তাছাড়া বিপিএল শুরুর আগে ঘরোয়াভাবে আরেকটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে হবে।’

ডেইলি বাংলাদেশ/সালি/আরএস